প্রতীকী চিত্র

কলকাতা: বাংলায় আল-কায়েদার বড়সড় চক্রের হদিশ পেল এনআইএ। ৬ জনকে গ্রেফতার করল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা।

শুধু বাংলা নয়, কেরলেও একাধিক জায়গায় তল্লাশি চালাচ্ছিল এনআইএ। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে তল্লাশি চালানো হয় দেশের একাধিক জায়গায়।

কেরল থেকে তিনজনকে ও বাংলা থেকে ৬ জন আল-কায়েদা জঙ্গিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এদের প্রত্যেকের বয়স ২০ বছরের নীচে ও এরা সবাই শ্রমিকের কাজ করে বলে জানা গিয়েছে।

কেরল থেকে যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তারা হল মুর্শিদ হাসান, ইয়াকুব বিশ্বাস, মোশারফ হোসেন। কেরল পুলিশ জানিয়েছে এনারকুলম থেকে যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তারাও বাংলার বাসিন্দা, পেরুমাভুর এলাকায় থাকে তারা।

এছাড়া মুর্শিদাবাদ থেকে ধৃত ৬ জনের নাম- নাজমুস সাকিব, আবু সুফিয়ান, মইনুল মণ্ডল, লিউ ইয়ান আহমেদ, আল মামুন কমল, আতিউর রহমান।

কেরল ও পশ্চিমবঙ্গের মোট ১১ টি জায়গায় তল্লাশি চালিয়েছে এনআইএ। এরা অস্ত্র ডেলিভারি দিতে কাশ্মীরে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিল বলে জানা গিয়েছে। এনআইএ জানিয়েছে, প্রাথমিক তদন্তে উঠে আসছে যে আল-কায়েদাই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে এদের মগজধোলাই করেছে। দিল্লির একাধিক জায়গায় হামলার পরিকল্পনা ছিল বলেও জানা গিয়েছে।

এনআইএ-র মুখপাত্র ডিআইজি সোনিয়া নারাং জানিয়েছেন, এদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের দিল্লি যাওয়ার কথা ছিল ও অস্ত্র ও বারুদ সংগ্রহ করার কথাও ছিল। এই ৯ জনকে গ্রেফতারের ফলে দেশে বড়সড় হামলা প্রতিহত করা সম্ভব হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

৯ জনের থেকে তথ্য সংগ্রহ করার চেষ্টা করছে এনআইএ। এদের পরিকল্পনা ছিল, শুধু হামলা চালানোই নয়, দেশ জুড়ে যতটা সম্ভব সন্ত্রাসবাদ ছড়িয়ে দেওয়া।

একগুচ্ছ ডিজিটাল নথি, ডিভাইস, ধারাল অস্ত্র, দেশে তৈরি আগ্নেয়াস্ত্র পাওয়া গিয়েছে তাদের কাছ থেকে। এমনকি বোমা বানানোর তথ্য রয়েছে, এমন কিছু লেখাও সংগ্রহ করা হয়েছে তাদের কাছ থেকে। তাদের সংশ্লিষ্ট আদালতে পেশ করবে এনআইএ।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।