কলকাতা: খাগড়াগড়-কাণ্ডের প্রথম চার্জশিট পেশ হল। সোমবার সকালে চার্জশিট পেশ করে এনআইএ। তদন্তভার নেওয়ার ১৭৭ দিনের মাথায় পেশ হল চার্জশিট।

চার্জশিটে মোট ২১ জনের নাম আছে বলে জানা গিয়েছে। গত বছরের অক্টোবর মাসে বর্ধমানের খাগড়াগড়ে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। মোট ৪০০ জন সাক্ষীর নামও উল্লেখ করা হয়েছে চার্জশিটে। এনআইএ সূত্রে খবর, দেশদ্রোহিতার অভিযোগ আনা হয়েছে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে। বোরো জঙ্গিদের এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকার কথা চার্জশিটে উল্লেখ আছে।
এখনও পর্যন্ত এই ঘটনায় অভিযুক্ত মোট ১৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সর্বশেষ আব্দুল মজিদকে গ্রেফতার করা হয় শিয়ালদহ স্টেশন থেকে। এখনও চার অভিযুক্ত অধরা। এদের মু্যে দু’জন বাংলাদেশের নাগরিক।

বাংলাদেশের নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জামাত-উল-মুজাহিদিনের সদস্যরা এদেশের তিনটি রাজ্যে প্রশিক্ষন দিয়ে নিজেদের জাল বিস্তারকরতে চাইছিল, এমনটাই জানানো হয়েছে চার্জশিটে। রাজ্যগুলি হল পশ্চিমবঙ্গ, অসম ও ঝাড়খণ্ড। এই তিনটি জায়গাতেই তৈরি করা হয়েছিল প্রশিক্ষন কেন্দ্র। এখানে প্রশিক্ষন দিয়ে বাংলাদেশে নাশকতার ছক তৈরি করা হয়েছিল।

বিস্ফোরণের ঘটনার কিছুদিনের মধ্যেই ঘটনার তদন্তভার নেয় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ। বর্ধমানের খাগড়াগড়ের একটি বাড়িতে তৈরি করা হত বোমা। এই ঘটনায় বড়সড় জঙ্গি কার্যকলাপ সামনে আসে। প্রচুর বোমা উদ্ধার হয়। এখনও তদন্ত চলছে।