স্টাফ রিপোর্টার, কাঁথি: গায়ে আর তেমন জোর নেই৷ শীতের তীব্রতার সঙ্গে লড়াই করার মত ক্ষমতাও নেই৷ শীত তাঁর কাছে তাই নলেনগুড়ের স্বাদ নিয়ে আসে না, খেজুর রসের বিলাসিতাও তাঁর সাজে না৷ শীত তাঁর কাছে কষ্টের৷ যন্ত্রণার৷

কারণ দারিদ্র্য তাঁর শীতবস্ত্রের ওম কেড়ে নিয়েছে৷ অভাব তাঁর মুখের গ্রাস কেড়েছে৷ তাই শীতের সাথে লড়ার অস্ত্রগুলো বয়সের সাথেই তিনি হারিয়েছেন এক এক করে৷ তবু ভেঙে পড়েননি৷ সেই মনোবল আরও বাড়াল এক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা৷

পূর্ব মেদিনীপুরের ভূপতিনগরের মনোরমা রাণার হাতে শীতবস্ত্র তুলে দিল সেই সংস্থা৷ শুধু তাই নয়, তাঁর হাতে তুলে দিল কিছু খাবারও৷ যাতে দুবেলা দু মুঠো জোটে তাঁর৷ একটি কম্বল, চাদর, টুপি, শাড়ি, সোয়েটার তুলে দেওয়া হল বৃদ্ধার হাতে৷

আগামি দিনেও এই বৃদ্ধার দেখাশোনা করবে স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাটি৷ এমনই অঙ্গীকারবদ্ধ হলেন তাঁরা৷ তাঁদের লক্ষ্যে ওই বৃদ্ধার খাওয়া দাওয়ার যোগান দেওয়া, তাঁর ভাঙাচোরা বাড়িটাকে মেরামত করে তোলা৷ এখানেই শেষ নয়, চিকিৎসার বন্দোবস্ত করা৷