প্যারিস: সবুজ ঘাসে তাঁর গড়াগড়ির অভিনয় নিয়ে সমালোচনা চলতেই পারে৷ তবে বলে শট নিলে তেকাঠি চিনতে ভুল করেন না ব্রাজিলের ওয়ান্ডার কিড৷ বুধবার নয়া রেকর্ড ছুঁয়ে ফেললেন নেইমি৷ চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ঘরের মাঠে লিভারপুলের বিরুদ্ধে গোল করে নতুন কীর্তি গড়লেন পিএসজি’র ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার৷

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে ব্রাজিলিয়ান ফুটবলারদের মধ্যে সর্বাধিক গোল করার নজির এখন নেইমারের মুকুটে৷ বুধ রাতে লিভারপুলের বিরুদ্ধে ৩৬মিনিটে এমবাপের ক্রস থেকে কাভানি শট প্রতিহত হয়ে বক্সের মধ্যে পড়তে ফিরতি বলে আলতো টোকায় বল জালে জড়ান নেইমার৷ চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে যা নেইমারের ৩১ তম গোল৷ ব্রাজিলিয়ান কোনও ফুটবলার হিসেবে এই প্রতিযোগিতায় এটিই সর্বাধিক গোলের রেকর্ড৷ এর আগে ১৩ মিনিটে জুয়ান বারনাটের গোলে এগিয়ে যায় পিএসজি৷ প্রথমার্ধের শেষ বাঁশি বাজার আগে অবশ্য পেনাল্টি থেকে মিলনারের গোল ব্যবধান কমায় লিভারপুল৷ দ্বিতীয়ার্ধে বেশ কয়েকবার বিপদ তৈরি করেও গোলমুখ খুলতে না পারায় পিএসজি’র কাছে ১-২ ম্যাচ হারে রেডসরা৷

আরও  পড়ুন- পাকিস্তানে দল পাঠাবে না বিসিসিআই, ভারত খেলবে শ্রীলঙ্কায়

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ব্রাজিলিয়ানদের মধ্যে সর্বাধিক গোলের তালিকায় নেইমারের পর দু’নম্বরে রয়েছেন কাকা৷ ইউরোপ সেরা ক্লাবের প্রতিযোগিতায় তাঁর গোলের সংখ্যা ৩০৷ গত মাসেই রেড স্টার বেলগ্রেডের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক করে কাকাকে ছুঁয়ে ফেলেছিলেন নেইমার৷ পাশাপাশি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ৩০ বা তার বেশি গোল করার তালিকায় ২০তম ফুটবলার হিসেবে লিখিয়ে ফেললেন তিনি৷

আরও পড়ুন- এডুলজির বিরুদ্ধে তোপ প্রাক্তন ভারতীয় কোচের

একনজরে দেখে নেওয়া যাক চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ব্রাজিলিয়ান ফুটবলারদের গোলের রেকর্ড-

নেইমার: ম্যাচ সংখ্যা- ৫২, গোল সংখ্যা ৩১ , গোল করিয়েছেন ২২টি৷
কাকা: ম্যাচ সংখ্যা- ৮৬, গোল সংখ্যা ৩০, গোল করিয়েছেন ২৬টি৷
রিভালদো: ম্যাচ সংখ্যা -৭৩, গোল সংখ্যা- ২৭, গোল করিয়েছেন ১১টি

পিএসজি’র কাছে এই হারের ফলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর রাস্তা কঠিন করল শেষ বারের রানার্স লিভারপুল৷ ৫ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ শীর্ষে নাপোলি৷ সমসংখ্যাক ম্যাচ খেলে ৮ পয়েন্ট নিয়ে দু’নম্বরে পিএসজি৷ ৬ পয়েন্ট নিয়ে তিনে রয়েছে লিভারপুল৷ শেষ ম্যাচে লিভারপুলের কঠিন প্রতিপক্ষ নাপোলি৷ পিএসজি শেষ ম্যাচে আবার নামছে বেলগ্রেডের বিরুদ্ধে৷ ফলে শেষ ষোলোয় যাওয়ার জন্য নিজেদের শেষ ম্যাচ জয় ছাড়াও পিএসজি’র ড্র’য়ের আশার দিকে তাকিয়ে থাকতে হবে রেডর্সদের৷ এরপর রয়েছে গোলপার্থক্যের সমীকরণ৷ রাস্তা কঠিন লিভারপুলের৷

আরও পড়ুন- বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই ‘চক দে ইন্ডিয়া’