প্যারিস: চ্যাম্পিয়ন্স লিগে তিন ম্যাচের নির্বাসন ছিল আগেই৷ এবার ঘরোয়া লিগে তিন ম্যাচের নির্বাসন হল পিএসজি তারকা নেইমারের৷ শুক্রবার ব্রাজিলীও সুপারস্টারের নির্বাসনের সাজা শোনায় ফ্রেঞ্চ ফুটবল ফেডারেশন৷

নির্বাসন কার্যকরী হবে ১৩ মে থেকে৷ ফলে শনিবার লিগ ওয়ানে ফ্রেঞ্চ চ্যাম্পিয়ন অ্যাঙ্গারের বিরুদ্ধে খেলতে পারবেন নেইমার৷ কিন্তু ঘরোয়া মরশুমের শেষ দু’টি ম্যাচে নেইমারকে পাবে না পিএসজি৷ এছাড়াও ৩ অগস্ট চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ফ্রেঞ্চ চ্যাম্পিয়ন্স ও ফ্রেঞ্চ কাপ উইনারের মধ্যে ম্যাচেও খেলতে পারবেন না নেইমার৷ ফ্রেঞ্চ কাপ ফাইনালে হারের পর মাঠ ছাড়ার সময় এক সমর্থককে ঘুসি মেরে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন নেইমার৷ তবে দলের এই তারকা খেলোয়াড়ের নির্বাসনের বিরুদ্ধে অ্যাপিল করবে পিএসজি৷

৬ মার্চ, চলতি চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ ষোলোর ম্যাচে ম্যাচ অফিসিয়ালদের বিরুদ্ধে অভব্য আচরণের কারণে নেইমারকে ইউরোপে ক্লাব ফুটবলের সর্বোচ্চ পর্যায়ে ৩ ম্যাচের জন্য নেইমারকে নির্বাসিত করে উয়েফা। যার ফলে আগামী মরশুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গ্রুপ পর্বের প্রথম তিন ম্যাচে নেইমারকে পাবে না তাঁর ক্লাব পিএসজি। চোটের কারণে এই ম্যাচে নামতে পারেননি নেইমার। ভিআইপি বক্সে বসেই ম্যান ইউ-এর বিরুদ্ধে দলের আত্মসমর্পণ চাক্ষুষ করেছিলেন ব্রাজিলিয়ান তারকা। প্রথম লেগে এগিয়ে থাকলেও দ্বিতীয় লেগে দুরন্ত প্রত্যাবর্তন করে নেইমারের ক্লাব পিএসজি’কে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে দিয়ে শেষ আটে জায়গা পাকা করে ম্যান ইউ।

ম্যাচের অতিরিক্ত সময়ে রেড ডেভিলসদের পেনাল্টি পাওয়াকে কেন্দ্র করে বিতর্ক দানা বাঁধে। নেইমারের মতে ইনজুরি সময়ের ওই ঘটনায় কোনওভাবেই পেনাল্টি প্রাপ্য ছিল না ম্যান ইউয়ের। ম্যাচ শেষের কিছুক্ষণের মধ্যেই এবিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দেন ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড। রেফারিকে তিরস্কার করে নেইমার লেখেন, ‘এটা অন্যায়। উয়েফা চারজন এমন অফিসিয়ালদের ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্ব দিয়েছে, যাদের ফুটবল কিংবা ভিএআর সম্পর্কে ধারণা নেই। হাতের পিছনে বল এসে লাগলে কোন নিয়মে সেটা হ্যান্ডবল হয়?’ ইনস্টাগ্রামে প্রশ্ন তুলে বিতর্কে জড়ান ব্রাজিলীও সুপারস্টার।