ওয়েলিংটন: এমনিতেই কড়া শাসক হিসেবে পরিচিত তিনি। নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরর্ডানের নতুন হুকুমে শোরগোল পড়ল। বিদেশ থেকে আসতে চাওয়া নিজেদের নাগরিকদেরই ঢুকতে বাধা সরকারের।

বিবিসি জানাচ্ছে, করোনা সংক্রমণ বাড়তে দেওয়ার ঝুঁকি নিতে চান না লেবার পার্টির নেত্রী। জেসিন্ডা আর্ডানের কঠোর ভূমিকা রয়েছে সরকার চালানোর ক্ষেত্রে। ।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, নিউজিল্যান্ড সরকার বিদেশ ফেরত নাগরিকদের একটা অংশকে দেশে প্রবেশে বাধা দিচ্ছে। বলা হয়েছে, আগামী তিন সপ্তাহ এই নির্দেশ জারি থাকবে। এর কারণ হিসেবে সরকার সীমিত পরিমাণ কোয়ারেন্টাইন সুবিধার কথা জানিয়েছে। এখন সরকার নতুন করে তিন সপ্তাহের জন্য দেশে ফেরায় নিষেধাজ্ঞা জারি করায় বিতর্ক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, নিউজিল্যান্ডে প্রায় ৬ হাজার কোয়ারেন্টাইনে আছেন। আর চলতি সপ্তাহে ৩ হাজার ৫০০ জনের ফেরার কথা। এরা আগে থেকে টিকিট কেটে রেখেছিলেন।

করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রবল প্রতিরোধ গড়েছে নিউজিল্য়ান্ড সরকার। বিবিসি জানাচ্ছে, গত ৬৭ দিনে কমিউনিটি পর্যায়ে দেশটিতে কোনও নতুন করোনা রোগী ধরা পড়েনি।

সম্প্রতি ২২ জন করোনা রোগী বাইরে থেকে নিউজিল্য়ান্ডে এসেছেন,। তারা সবাই এমন দেশ থেকে নিউজিল্যান্ড আসছেন যেখানে করোনাভাইরাস সংক্রমণ বাড়ছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের হিসেব, নিউজিল্যান্ডে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১,৫৩৬ জন। ২২ জন মৃত। বাকিরা সুস্থ হওয়ার দিকে। সম্প্রতি নিউজিল্যান্ডের সরকার নিজেদের করোনা মুক্ত বলে জানায়। তবে তার পরেও কিছু সংক্রমণের খবর এসেছিল।

এবার যে সব নিউজিল্যান্ড নাগরিক বিভিন্ন দেশ থেকে নিজ দেশে ফিরতে চাইছেন তাদের মাধ্যমে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা থাকায় প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা নতুন কড়া নির্দেশ দিলেন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ