কলকাতা : বিক্ষিপ্ত কিছু ঘটনা ছাড়া রাজ্যের ৪৫টি বিধানসভার পঞ্চম দফার নির্বাচন সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত শান্তিতেই হচ্ছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। তবে এরই মধ্যে কল্যাণী, পূর্ব বর্ধমান ও মিনাখাঁ থেকে কিছু বিক্ষিপ্ত হিংসার ঘটনার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

কল্যাণীর গয়েশপুর সকাল সাড়ে ৫টা থেকেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে স্থানীয় মহিলারা হুমকির অভিযোগ এনেছেন। তাদের অভিযোগ, পুলিশ বা কুইক রেসপন্স টিমকে খবর দিয়েও গোলমালের সময় কাছে পাওয়া যায়নি। অবশেষে ভোটাররা রাস্তা অবরোধ করেন। মহিলারা আতঙ্কে বলতে থাকেন টাঁনরা ভোট দিতে যাবেন না।এখানে বিজেপির বুথ এজেন্টকে বুথ থেকে বার করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। যে বুথে ভোটদানে বাধার অভিযোগে ভোটাররা রাস্তা অবরোধ করেন, সেই বুথে প্রায় আড়াই ঘণ্টা পর কুইক রেসপন্স টিম পৌঁছয় । পৌঁছেছেন বিজেপি প্রার্থীও। তিনি বুথে এজেন্টকে বসান। প্রায় এক ঘণ্টা রাস্তা অবরোধ হয়। অবশেষে কেন্দ্রীয় বাহিনীর আশ্বাস পেয়ে বুথে গিয়েছেন ওই ভোটাররা। বাহিনী বুথের কাছে জমায়েত সরিয়ে দিয়েছে। তবে কী করে বুথের কাছে জমায়েত হতে পারলো সেই নিয়ে প্রশ্ন উঠছে ।

আমাদের কাছে খবর আসছে বিধাননগরের নয়াপট্টিতে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ উঠছে বিজেপির বিরুদ্ধে। শান্তিপুরের হরিপুরে অশান্তির খবর পাওয়া যাচ্ছে । বিজেপির পোলিং এজেন্টকে বাধা দানের অভিযোগ এসেছে সেখান থেকে । ভোটারদেরও বাধা দেওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে । এলাকায় পৌঁছেছে কেন্দ্রীয় বাহিনী।

নদিয়ার কল্যাণীতে বিজেপি কর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ। বিজেপি কর্মীরা অভিযোগ করে, তৃণমূলের বেশকিছু বাইক বাহিনী তাঁদের ওপর রড-লাঠি হামলা চালায়। এর ফলে বিজেপি-র বেশ কয়েকজন কর্মী আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছেছে পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনী।

বর্ধমান উত্তরে সরাইটিকরে বিজেপি এজেন্টকে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে । ওই বিজেপি কর্মীকে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। আরও তিন বিজেপি কর্মীও আক্রান্ত হয়েছে বলে অভিযোগ। জখম বিজেপি এজেন্টকে স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে তৃণমূল এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

সল্টলেক সুকান্তনগরে বিজেপি কর্মীর আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিজেপি কর্মীকে খুনের চেষ্টার অভিযোগ করা হয়েছে । শুক্রবার রাত সাড়ে আটটা নাগাদ এই ঘটনা ঘটে বলে বিজেপি-র তরফে অভিযোগ করা হয়েচ্ছে । ধারাল অস্ত্র দিয়ে ওই বিজেপি কর্মীর গলায় কোপ মারার অভিযোগ করেছে বিজেপি। বিধাননগর দক্ষিণ থানায় এই মর্মে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে অভিযোগ দায়ের। তৃণমূলের প্রতিক্রিয়া মেলেনি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.