পাটনা: দলিত প্রতিবাদের জেরে অ্যাম্বুল্যান্সেই মারা গেল এক সদ্যোজাত৷ ঘটনাটি ঘটেছে বিহারের বৈশালী জেলায়৷ সোমবার দলিতদের ডাকা ভারত বনধের জেরে রাস্তায় যানবাহন চলাচল আটকে যায়৷ সেখানেই অ্যাম্বুল্যান্সে ছিল এক সদ্যোজাত৷ গুরুতর অসুস্থ ছিল সে৷ ঠিক সময় হাসপাতাল নিয়ে যেতে না পারা জন্য রাস্তাতেই তার মৃত্যু হয়৷

এই সদ্যোজাতের মৃত্যু বনধের সময় বিহার থেকে পাওয়া প্রথম মৃত্যুর খবর৷ এই রাজ্যে মিছিল করে প্রতিবাদ জানানোর পাশাপাশি রাস্তা ও রেলওয়ে ট্র্যাক অবরোধ করে দেওয়া হয়৷ কিন্তু এখানে কোনও হিংসাত্মক ঘটনা ঘটেনি৷ জানা গিয়েছে, পাটনা থেকে ৫২ কিলোমিটার দূরে মহনর জেলায় জন্মেছিল সে৷ কিন্তু জন্মের পর তার শরীরের অবস্থা খারাপ হতে থাকে৷ তাকে হাজিপুর হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়৷ কিন্তু প্রতিবাদের ঠেলায় বিভিন্ন জায়গায় আটকে যায়৷ গাড়ির চালককে লাঠি হাতে আটকায় প্রতিবাদকারীরা৷ ফলে শেষমেশ হাসপাতালে পৌঁছতে পারেনি সেই সদ্যোজাত৷ যে রাস্তা যেতে সময় লাগে এক ঘণ্টারও কম, সেই রাস্তা যেতে সময় লেগেছে আড়াই ঘণ্টা৷ তারপর যতক্ষণে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়, ততক্ষণে তার মৃত্যু হয়েছে৷

উত্তরপ্রদেশেও একটি মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে৷ বিনজোরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মৃত্যু হয় এক বৃদ্ধের৷ তাঁর বয়স ৬৮ বছর৷ বনধের জেরে আটকে যাওয়ায় তাঁর ছেলে তাঁকে কাঁধে চড়িয়ে হাসপাতালে নিয়ে যায়৷ কিন্তু তাতেও শেষরক্ষা হয়নি৷ মারা যান ওই বৃদ্ধ৷