ওয়েলিংটন: গোটা বিশ্ব যেখানে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে চলেছে, সেখানে করোনাভাইরাস মুক্ত দেশগুলির মধ্যে সবার প্রথমে উঠে এসেছিল নিউজিল্যান্ড। অন্যান্য দেশের থেকে প্রায় সবার আগেই নিজেদের করোনা মুক্ত হিসেবে ঘোষণা করেছিল এই দেশ। তবে ফের নতুন করে সংক্রমণের খোঁজ পাওয়াতে লকডাউন করা হল নিউজিল্যান্ডের গুরুত্বপূর্ণ শহর।

নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি শহর। দেশের বেশিরভাগ মানুষ একাধিক কারণে ওই শহরের উপরে নির্ভর করে থাকেন। জানা গিয়েছে, করোনা মুক্ত থাকার প্রায় ১০২ দিন পরে পাওয়া গিয়েছে নতুন করে আক্রান্তের খোঁজ। আর সেই কারণেই দ্রুততার সঙ্গে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে প্রশাসনের তরফে।

প্রধানমন্ত্রী জেসিকা আরদ্রেন জানিয়েছেন বুধবার দুপুর থেকে তৃতীয় পর্যায়ের নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে এই শহরের উপরে। নিরাপত্তার কারণেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে প্রশাসনের তরফে। এছাড়া যে কোন ধরনের জমায়েতের উপরেও জারি করা হয়েছে নিষেধাজ্ঞা। জানা গিয়েছে এই নিষেধাজ্ঞা চলবে আগামী তিনদিনের জন্য। আর এই নিষেধাজ্ঞা চলাকালীন বন্ধ থাকবে ওই শহরের স্কুল সহ কর্মক্ষেত্র। বাইরে থেকে কেউ প্রবেশ করতে পারবেন না অকল্যান্ডে।

ডিরেক্টর জেনারেল অফ হেলথ অ্যাশলে ব্লুমফিল্ড জনিয়েছেন একই পরিবারের মধ্যে চারজন সংক্রমিত হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। তাদের মধ্যে একজনের বয়স ৫০ এর বেশি। পাশপাশি বিদেশে যাওয়ার কোন ইতিহাস তাদের নেই। কিভাবে তারা সংক্রমিত হলেন তা জনার চেষ্টা করা হচ্ছে। এছাড়াও তাদের সংস্পর্শে যারা এসেছিলেন, তাদের চিহ্নিত করার কাজ চলছে দ্রুততার সঙ্গে।

১০০ দিনের উপরে কার্যত করোনা মুক্ত থাকার রেকর্ড এই মুহূর্তে সম্ভব করে দেখিয়েছে ছোট্ট নিউজিল্যান্ড। কিন্তু একইসঙ্গে সাধারণকে যথাযথ সতর্কতা অবলম্বন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যেহেতু নতুন করে সংক্রমণ হওয়ার বিষয়টি সামনে এসেছে সেই কারণে ফের শক্ত হাতে পরিস্থিতি নিজেদের দায়িত্বে নিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা