ক্রাইস্টচার্চ: মাত্র ১৪ বলেই লেখা হয়ে গেল ইতিহাস৷ ক্রাইস্টচার্চে শ্রীলঙ্কাকে বিশাল ব্যবধানে পরাজিত করে টেস্ট সিরিজের দখল নিল নিউজিল্যান্ড৷ সেই সঙ্গে প্রায় ন’দশকের টেস্ট ইতিহাসে সংযোজিত হল এক সোনালি অধ্যায়৷

দ্বিতীয় টেস্টের শেষ দিনে জয়ের জন্য নিউজিল্যান্ডের প্রয়োজন ছিল চারটি উইকেট৷ শ্রীলঙ্কার দরকার ছিল ৪২৯ রান৷ নিউজিল্যান্ডের জয় যে কেবল সময়ের অপেক্ষা ছিল, তা নিয়ে কারও সংশয় ছিল না৷ তবে মাত্র ২.২ ওভারেই শ্রীলঙ্কার লেজ ছেঁটে ফেলবে কিউয়িরা, ততটাও আশা করেনি কেউ৷

আরও পড়ুন: পাকিস্তানের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করল নিউজিল্যান্ড

প্রথম ইনিংসের মতো শ্রীলঙ্কার টেলএন্ডাররা দ্বিতীয় ইনিংসেও সাজঘরে ফেরার মিছিলে পা মেলায়৷ প্রথম ইনিংসে একসময় ৯৪ রানে ৪ উইকেটে দাঁড়িয়ে থাকা শ্রীলঙ্কা মাত্র ১০ রানের মধ্যে শেষ ছ’টি উইকেট হারিয়ে অলআউট হয়ে যায় ১০৪ রানে৷ ঠিক একইভাবে দ্বিতীয় ইনিংসেও ধসে পড়ে দ্বীপরাষ্ট্রের লোয়ার অর্ডার৷ অবশ্য চোট পাওয়া অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজ শেষ দিনে আর ব্যাট করতে নামেননি৷

জয়ের জন্য শ্রীলঙ্কার সামনে টার্গেট ছিল ৬৫৯ রানের৷ চতুর্থ দিনের শেষে সিংহলিরা ৬ উইকেটে ২৩১ রান তুলেছিল৷ তার পর থেকে খেলা শুরু করে শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় ইনিংস শেষ হয় ২৩৬ রানে৷ নিউজিল্যান্ড ৪২৩ রানের বিশাল ব্যবধানে দ্বিতীয় টেস্ট জিতে নেয়৷ প্রথম টেস্ট ড্র হওয়ায় দু’ম্যাচের সিরিজ ১-০ ব্যবধানে জিতে যায় কিউয়িরা৷

আরও পড়ুন: সোধি-ওয়াগনারের দুরন্ত প্রতিরোধে সিরিজ জিতল নিউজিল্যান্ড

এই নিয়ে টানা চারটি টেস্ট সিরিজে জয় তুলে নিল নিউজিল্যান্ড৷ তাদের ৮৮ বছরের টেস্ট ইতিহাসে এর আগে এমনটা কখনও হয়নি৷ অর্থাৎ নিউজিল্যান্ড কখনই পর পর চারটি টেস্ট সিরিজ জেতেনি৷ শ্রীলঙ্কাকে হারানোর আগে নিউজিল্যান্ড ওয়েস্ট ইন্ডিজ, ইংল্যান্ড ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে শেষ তিনটি টেস্ট সিরিজ জিতেছে৷

ঘরের মাঠে সিরিজ জয়ের সুবাদে আইসিসি টেস্ট ব়্যাংকিংয়ে দক্ষিণ আফ্রিকাকে টপকে তিন নম্বরে উঠে আসে নিউজিল্যান্ড৷ তাদের সংগৃহীত রেটিং পয়েন্ট ১০৭৷ দক্ষিণ প্রোটিয়াদের (১০৫) দু’পয়েন্টের ব্যবধানে পিছনে ফেলে দেয় কিউয়িরা৷ ভারত ১১৬ পয়েন্ট নিয়ে যথারীতি এক নম্বরে রয়েছে৷ ১০৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থান ধরে রেখেছে ইংল্যান্ড৷ ১০২ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচ নম্বরে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া৷