ক্রাইস্টচার্চ: দলের চূড়ান্ত ব্যাটিং বিপর্যয়ের মাঝে ব্যতিক্রমী শুভমন গিল ও হনুমা বিহারী৷ দুই তারকার মিলিত প্রয়াসে ভারত দু’শোর গণ্ডি টপকাতে সক্ষম হলেও নিউজিল্যান্ডের সামনে কড়া চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিতে ব্যর্থ হয়৷

ক্রাইস্টচার্চে নিউজিল্যান্ড-এ দলের বিরুদ্ধে চার দিনের প্রথম বেসরাকরি টেস্টে টস হারেন ভারত অধিনায়ক হনুমা বিহারী৷ কিউয়ি দলনায়ক হামিশ রাদারফোর্ড টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানান ভারতকে৷ হ্যাগলি ওভালের তাজা পিচে কিউয়ি বোলাররা ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের শুরু থেকেই অস্বস্তিতে রাখে৷

আরও পড়ুন: হ্যামিলটনের গ্যালারিতে কিউয়ি সমর্থকের গলায় ‘ভারত মাতা কি জয়’, ভাইরাল ভিডিও

দুই ওপেনার অভিমন্যু ঈশ্বরন ও ময়াঙ্ক আগরওয়াল ব্যাট হাতে পুরোপুরি ব্যর্থ৷ খাতা খুলতে পারেননি ময়াঙ্ক৷ ঈশ্বরন আউট হন ৮ রান করে৷ তিন নম্বরে ব্যাট করতে নেমে প্রিয়ঙ্ক পাঞ্চাল ক্রিজ ছাড়েন ১৮ রান করে৷ দলগত ৩৪ রানের মাথায় ভারতীয়-এ দল তিন উিকেট হারিয়ে বসে৷

ক্যাপ্টেন হনুমাকে সঙ্গে নিয়ে শুভমন গিল চতুর্থ উইকেটের জুটিতে ১১৯ রান যোগ করেন৷ ব্যাক্তিগত হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করার পরেই আউট হন হনুমা৷ ৮টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৭৯ বলে ৫১ রান করেন তিনি৷ গিল আউট হন ৮৩ বলে ৮৩ রানের আগ্রাসী ইনিংস খেলে৷ তিনি ৯টি চার ও ২টি ছক্কা মারেন৷

আরও পড়ুন: তরুণদের ক্রিকেটেও ‘স্পিরিট অফ ক্রিকেট’, কুর্নিশ রোহিতের

শুভমন আউট হওয়ার পরেই ধস নামে ভারতীয় ইনিংসে৷ টেল এন্ডাররা দৃঢ়তা দেখাতে না পারায় ভারত প্রথম ইনিংসে অল-আউট হয়ে যায় ২১৬ রানে৷ কেএস ভরত ১৬, বিজয় শংকর ৮, শাহবাজ নদিম ১৮, মহম্মদ সিরাজ ২ ও ইশান পোড়েল ০ রানে আউট হন৷ মাইকেল রে ৪টি, ম্যাককঞ্চি ৩টি, জেকব ডাফি ২টি ও সিয়ান সোলিয়া ১টি উইকেট দখল করেন৷

পালটা ব্যাট করতে নেমে নিউজিল্যান্ড-এ দল প্রথম দিনের খেলা শেষ করে তাদের প্রথম ইনিংসে ২ উইকেটে ১০৫ রান তুলে৷ ক্যাপ্টেন রাদারফোর্ড ২৮ রান করে ইশান পোড়েলের বলে আউট হন৷ রাচিন রবীন্দ্র ৪৭ রান করে সিরাজের বলে সাজঘরে ফেরেন৷ উইল ইয়ং ২৬ ও আজাজ প্যাটেল ১ রান করে অপরাজিত রয়েছেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।