লন্ডন: উচ্চহারে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় করোনা ভাইরাসের বিধিনিষেধ সর্বোচ্চ স্তরে পালনে মরিয়া লন্ডন। সোমবার সেখানকার স্বাস্থ্যমন্ত্রী একথা জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন – ‘কেউ কেউ জোয়ারে আসে আর ভাটায় চলে যায়’, ফের শুভেন্দুকে তোপ মমতার

বুধবার থেকেই লন্ডন জুড়ে শুরু হয়ে যাচ্ছে আরও কড়াকড়ি। পাব, রেস্তোঁরা ও অন্যান্য জায়গায় লোক নিয়ন্ত্রণ করার কথা বলা হয়েছে। তবে কেউ চাইলে খাবার রেস্তোরাঁ থেকে নিয়ে নিতে পারেন। কিন্তু রেস্তোরাঁয় বসে খেতে পারবেন না।

হেলথ সেক্রেটরি ম্যাট হ্যানকক জানিয়েছেন, প্রতিদিনকার সংক্রমণের মাত্রা ও হাসপাতালের ভর্তির সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। এমনকি করোনার নতুন ধরন নিয়েও আতঙ্কিত রয়েছে মানুষজন।

আরও পড়ুন – এসে গেল DakPay, দেশের যে কোনও জায়গায় টাকা পাঠানো আরও সহজ

হ্যানকক জানিয়েছেন, বিজ্ঞানীরা ইংল্যান্ডের দক্ষিণে করোনা ভাইরাসের একটি নতুন রূপ চিহ্নিত করেছেন, যার জেরেই হয়তো দ্রুত হারে ছড়িয়ে পড়ছে সংক্রমণ।

উল্লেখ্য, বর্তমানে লন্ডন ‘টায়ার ২’ এর মধ্যে রয়েছে। যার অর্থ হল অপরিহার্য নয় এমন দোকান বা পরিষেবাগুলি খোলা থাকতে পারে। তবে বুধবারের পর থেকে চালু হয়ে যাচ্ছে টায়ার থ্রি। এর অর্থ হল, বার, পাব এবং ক্যাফে খোলা থাকবে কিন্তু খাবার বসে খাওয়া চলবে না। একই সঙ্গে স্কুল, হেয়ারড্রেসার দোকান, খোলা থাকতে পারে।

আরও পড়ুন – বাংলায় অমিত শাহের সঙ্গে একমঞ্চে থাকার সম্ভাবনা আরও এক তৃণমূল বিধায়কের

প্রসঙ্গত, লন্ডনে ইতিমধ্যেই মোট সংক্রমণ ২ লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ৭০০০ এর বেশি মানুষের। সব মিলিয়ে আতঙ্কের পরিবেশ লন্ডনে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।