তেহরান: আমেরিকার নতুন সরকারকে অবশ্যই ডোনাল্ড ট্রাম্পের মানবতাবিরোধী ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপের নিন্দা করে অতীতের ক্ষতি পুষিয়ে দিতে হবে। এমনই মন্তব্য করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি।

বুধবার মন্ত্রী পরিষদের বৈঠকে তিনি একথা বলেন। রুহানি বলেন, ইরানি জাতি মার্কিন অর্থনৈতিক যুদ্ধের মোকাবেলায় প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে। অর্থনৈতিক যুদ্ধে ইরানের বিজয় ও আমেরিকার পরাজয়ের একটি প্রমাণ হলো ট্রাম্প জমানার ইতি।

ইরানের প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, ডোনাল্ড ট্রাম্প ইরান ও প্যালেস্টাইনের মতো স্বাধীনচেতা দেশগুলির বিরুদ্ধে ইতিহাসের সবচেয়ে জঘন্য অপরাধ করেছে। আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানগুলিতে, আইন ও অধিকার সংস্থাগুলিতে, নীতি-নৈতিকতায় ও বিশ্ব জনমতের কাছে ট্রাম্পের পরাজয় ঘটেছে। আর এসবই মার্কিন নির্বাচনে তার পরাজয় ডেকে এনেছে।

তিনি বলেন, আমেরিকার ট্রাম্প সরকার যেসব অপরাধ করে সেদেশের ভাবমর্যাদা নষ্ট করেছে এখন তাদেরকে সেসব কাজ থেকে সরে আসতে হবে এবং ভালো কাজ করতে হবে। তাহলে তারা অতীতের ভুলগুলি সংশোধন করতে সক্ষম হবে।

ইরান প্রতিশ্রুতির বদলে প্রতিশ্রুতি এবং পদক্ষেপের বদলে পদক্ষেপ গ্রহণের নীতিতে বিশ্বাস করে বলে জানিয়েছেন ড. হাসান রুহানি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।