ওয়াশিংটন: আক্রান্তের সংখ্যা যতই বাড়ছে ততই তৈরি হচ্ছে নতুন নতুন ক্রাইসিস। কোথাও কোথাও রয়েছে টেস্ট কিটের অভাব। যার ফলে কেউ আক্রান্ত হয়েছেন কিনা তা বুঝতেই অনেকটা সময় লেগে যাচ্ছে। আর তাতে আশঙ্কা বাড়ছে আরও।

এবার এই সমস্যার সমাধান করল আমেরিকার একটি ল্যাবরেটরি। মাত্র ৫ মিনিটেই করোনাভাইরাসের টেস্ট করা সম্ভব। শুক্রবার মার্কিন সংস্থার তরফ থেকে একথা জানানো হয়েছে।

‘অ্যাবট ল্যাবরেটরি’ নামে সংস্থা জানিয়েছে, আমেরিকার ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের তরফ থেকে এই সংস্থাকে খুব দ্রুত অনুমোদন দেওয়া হচ্ছে। জরুরী ভিত্তিতে এই পরীক্ষা চালু করার জন্য আগামী সপ্তাহের মধ্যেই অনুমোদন দিয়ে দেওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে।

ছোট একটি টোস্টারের মত দেখতে মেশিন তৈরি করেছে এই সংস্থা। মলিকিউলার টেকনোলজি ব্যবহার করে এই যন্ত্র তৈরি করা হয়েছে। এতে কারও দেহে সংক্রমণ হয়েছে কি না তা বলে দেওয়া যাবে মাত্র ৫ মিনিটে, আর সংক্রমণ না হলে তা বলতে সময় লাগবে ১৩ মিনিট। সংস্থার তরফ থেকে একটি বিজ্ঞপ্তি দিয়ে এই প্রযুক্তির কথা জানানো হয়েছে।

অ্যাবট এর প্রেসিডেন্ট ও চিফ অপারেটিং অফিসার বলেন, করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য এই যন্ত্র খুবই কার্যকরী হবে। মাত্র কয়েক মিনিটের যদি ফলাফল সামনে আসে, তাহলে চিকিৎসার ক্ষেত্রে অনেকটাই সুবিধা হবে। আর যেহেতু এই মেশিনটি আকারে ছোট, তাই এটি হাসপাতালের বাইরের দিকে যে কোনও একটি জায়গায় রেখে দেওয়া যাবে। হাসপাতালের ভিতরে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কাও কমবে।

উল্লেখ্য, চিন থেকে টেস্ট কিট কিনেছিল স্পেন। আর সেগুলি খুব একটা ভালো নয়। করোনা পরীক্ষার ক্ষেত্রে ওইসব কিট ঠিকঠাক রেজাল্ট দিচ্ছে না বলে অভিযোগ। এইসব কিটের ফলাফল নাকি মাত্র ৩০% সঠিক। চিনের স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফ থেকে একথা জানানো হয়েছে।

চিনা সংস্থা ‘শেনজেন বায়োইজি’ থেকে এইসব টেস্ট কিট কেনা হয়েছিল। সেগুলির মান একেবারে ভাল নয়। হাসপাতালে যখন এইসব টেস্ট কিট দিয়ে রোগীদের পরীক্ষা করা হয়েছে, তখন তাতে ঠিকঠাক ফলাফল আসেনি। চলতি সপ্তাহের শুরুতেই স্পেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সালভাডর ইলা জানান, চিন থেকে ৪৬৭ মিলিয়ন ডলারের চিকিৎসা সামগ্রী কেনা হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে ৯৫০ টি ভেন্টিলেটর, ৫৫ লক্ষ টেস্ট কিট, ১ কোটি ১০ লক্ষ গ্লাভস ও কয়েক কোটি ফেস মাস্ক। কিট গুলি ফেরত দেওয়া হচ্ছে ওই সংস্থাকে। তারা পাল্টে দেবে বলে জানিয়েছে।