রাষ্ট্রসংঘ: চিনের বারবার বাধা দেওয়া সত্বেও ফের মাসুদ আজহারকে নিষিদ্ধ তালিকাভুক্ত করতে উদ্যোগ নিল আমেরিকা। জইশ-ই-মহম্মদ প্রধান মাসুদ আজাহারকে গ্লোবাল টেররিস্ট ঘোষণা করতে একাধিবার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু বারবারই বাধা দিয়েছে চিন।

একটি খসড়া রেজোলিউশন আমেরিকার তরফ থেকে দেওয়া হয়েছে রাষ্ট্রসংঘে।

রাষ্ট্রসংঘে নিজেদের বক্তব্য জানিয়েও দিয়েছে আমেরিকা। আদতে চিন একেবারে শেষ মুহূর্তে ভেটো না দিলে মাসুদকে এতদিনে গ্লোবাল টেররিস্ট ঘোষণা করে দিত রাষ্ট্রসংঘ। চিনের পদক্ষেপের দু’সপ্তাহের মধ্যে নতুন কৌশল নিল আমেরিকা। ১৫ সদস্যের নিরাপত্তা পরিষদে একটি প্রস্তাব পাশ করিয়েছে আমেরিকা।

সেই প্রস্তাব অনুযায়ী কোথাও যাওয়ার ক্ষেত্রে মাসুদকে সমস্যায় পড়তে হবে। বাজেয়াপ্ত হবে তার সম্পত্তি। এই প্রস্তাবকে সমর্থন করেছে ব্রিটেন থেকে শুরু করে ফ্রান্সের মতো দেশ। ফ্রান্স অবশ্য আগেই নিজের দেশে মাসুদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার কাজ শুরু করে।

কাশ্মীরের পুলওয়ামার জঙ্গি হানার দায় করেছে জইশ-ই-মহম্মদ। মাসুদ আজহার অবশ্য এই ঘটনার অনেক আগে থেকেই ভারতকে রক্তাক্ত করে চলেছে। কান্দাহার কাণ্ডে মুক্তি পাওয়ার কয়েক বছরের মধ্যে ২০০১ সালে দেশের সংসদ ভবনে হামলা, ২০০৮ সালের মুম্বই হানা থেকে শুরু করে পাঠানকোট- নানা ঘটনায় মাস্টার মাইন্ড হিসেবে উঠে এসেছে এই জঙ্গি নেতার নাম।

দিল্লি বরাবর চেয়েছে মাসুদকে গ্লোবাল টেররিস্ট ঘোষণা করে দেওয়া হোক। আমেরিকা ব্রিটেন এবং ফ্রান্সও একই দাবি তোলে। নিরাপত্তা পরিষদের নিষেধাজ্ঞা কমিটিকে তারা নিজেদের বক্তব্য জানায়, কিন্তু বেজিং বাধা দেয়। বেশ কিছুটা সময় চুপ করে বসে থাকার পর চিন জানায় এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে আরও কিছুটা সময় লাগবে। কমিটির কাছে পাঠান সেই নোট ভেটো হিসেবে কাজ করে। মানে চিনের বাধায় মাসুদকে গ্লোবাল টেররিস্ট ঘোষণা করা গেল না।