2 DG

নয়া দিল্লিঃ দেশজুড়ে মারণ ভাইরাসের (Corona) তাণ্ডবে লণ্ডভণ্ড পরিস্থিতি। দিনে দিনে রেকর্ড হারে মানুষজন করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন। থেমে নেই মৃতের সংখ্যাও। পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাঁধ সেধেছে দেশের বিপর্যস্ত স্বাস্থ্য পরিকাঠামো। হাসপাতালে শয্যার অভাব, মিলছে না পর্যাপ্ত অক্সিজেনও। এহেন উদ্বেগজনক পরিস্থিতি মোকাবিলায় এবার স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে চিকিৎসকরা। জানা যাচ্ছে আর কমবে না অক্সিজেনের মাত্রা!

জানা যাচ্ছে, রোগীর অক্সিজেন নির্ভরতা কমিয়ে দিতে পারে এমন ওষুধে মিলেছে সবুজ সংকেত। যার ফলে স্বস্তিতে চিকিৎসক মহল। এই ওষুধটি আসলে গ্লুকোজ। যা খেতে হবে জলে গুলে। গোটা দেশে করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য ট্রায়াল চলছে প্রায় ৭০টি দেশীয় ওষুধ। তার মধ্যে এই টু ডিজি (2 DG) ওষুধে মিলছে সবুজ সংকেত। এটি করোনা আক্রান্ত রোগীদের অক্সিজেন (Oxygen) নির্ভরতা অনেকাংশে কমাচ্ছে। যা থেকে শ্বাসকষ্ট কমার ফলে রোগীর অবস্থারও উন্নতি হচ্ছে। এমনকি ধীরে ধীরে রোগী কোভিড (Covid-19) মুক্তও হয়ে উঠছেন।

তবে এই ওষুধ ৬৫ বছর বয়সীদের ক্ষেত্রেও কার্যকরী প্রমাণিত হচ্ছে। কিন্তু এখন শুধুমাত্র মাঝারি ও তার থেকে বেশি উপসর্গ যুক্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য ব্যবহারের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, এই দেশীয় ওষুধটির গবেষণা গত বছরের এপ্রিলে শুরু হয়। তারপর চূড়ান্ত পর্যায়ে পরীক্ষার জন্য দেশের ১০টি রাজ্যের একাধিক হাসপাতালের ১২০ জন করোনা আক্রান্ত (Covid Positive) রোগীদের উপর এই ওষুধ প্রয়োগ করা হয়। তাতেই মেলে সবুজ সংকেত। সাথে সাথে আশার আলো দেখলেন চিকিৎসকরাও। ইতিমধ্যেই ডিসিডিআই এর তরফে (DCDI) এর তরফে ছাড়পত্র পেয়েছে এই কৃত্রিম উপায়ে তৈরি দেশীয় গ্লুকোজ অণু। এটি প্রস্তুত করেছে ডিআরডিও (DRDO)।

প্রসঙ্গত, বুধবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গোটা দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ৪৮ হাজার ৪২১ জন। মঙ্গলবারের তুলনায় বেড়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। মঙ্গলবার ৩ লক্ষ ২৯ হাজার ৯৪২ জন আক্রান্ত হয়েছিলেন। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতের সংখ্যা অনেকটাই বেড়েছে। এদিন ফের মৃত্যুর সংখ্যা ৪ হাজারের গণ্ডি টপকালো। মঙ্গলবার যেখানে ৩ হাজার ৮৭৬ জনের মৃত্যু হয়েছিল সেখানে বুধবার ৪ হাজার ২০৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। কমেছে দৈনিক সুস্থতার হারও। মঙ্গলবার ৩ লক্ষ ৫৬ হাজার ৮২ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছিলেন। অন্যদিকে বুধবার ৩ লক্ষ ৫৫ হাজার ৩৩৮ জন সুস্থ হয়েছেন। এই মুহূর্তে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২ কোটি ৩৩ লক্ষ ৪০ হাজার ৯৩৮ জন। সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩৭ লক্ষ ৪ হাজার ৯৯ জন। এখনও পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ৯৩ লক্ষ ৮২ হাজার ৬৪২ জন। দেশের করোনায় আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ২ লক্ষ ৫৪ হাজার ১৯৭ জনের। মোট ১৭ কোটি ৫২ লক্ষ ৩৫ হাজার ৯৯১ জনকে এখনও পর্যন্ত ভ্যাকসিন দেওয়া সম্ভব হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.