কলকাতা : ‘তোমায় ছাডা় ঘুম আসে না মা’৷ এই ধারাবাহিকটি দর্শকমহলের কাছে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে৷ ঝিলক এবং তার মায়ের সম্পর্ককে ঘিরে গড়ে উঠেছিল ধারাবাহিকটির চিত্রনাট্য৷ প্রথম থেকেই ধারাবাহিকটির জনপ্রিয়তা শীর্ষে ছিল৷

সিরিয়ালটি বন্ধ হয়ে গেলেও তার চরিত্রগুলি এখনও মনে রেখেছে দর্শকরা৷ যেমন ঝিলিক অর্থাৎ তিথি বসু আজও সকলের ফেভারিট শিশুশিল্পী৷ কিন্তু সেই ঝিলিকই আর ছোট নেই৷ কেন এমনটা বলছি সেটা আপনি তিথির ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে উঁকি ঝুঁকি মারলেই বুঝতে পারবেন৷

তিথির ইনস্টাগ্রামে প্রায় অসংখ্য জেন ওয়াইয়ের ছেলেমেয়েরা ঢু মারে৷ মেয়েরা ঢু মারছে ফ্যাশন ট্রেন্ডিংয়ের জন্য আর ছেলেরা ঢু মারছে তিথির সৌন্দর্য্যের কারণে৷ তিথির এক একটা ছবিতে হাজার মতো লাইকস৷

নেটিজেন এবং তিথির ফ্যানেদের মতে তিথিকে জিনস এবং ক্রপ টপেই বেশি ভালো লাগে৷ সেটা বোধহয় তিথিও জানেন৷ তাই জন্যই নানা রকমের ট্রেন্ডি ডিজাইনের ক্রপ টপ এবং জিনস পরে ছবি আপলোড করেন৷

রীতিমত তাঁকে ফ্যাশানিস্তা অ্যাখা দিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ তার সঙ্গে টলিপাড়ার ইয়ং জেনেরেশনের মধ্যে তিথিও একজন ইন্টারনেট সেনসেশন৷ কেবল জিনস এবং ক্রপ টপ নয়, ওয়েস্টার্ন ছাড়াও এথনিক পোশাকেও বেশ মানায় তিথিকে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।