মুম্বই: দিন কয়েক আগে মুম্বইয়ের পালি হিল অঞ্চলে কঙ্গনা রানাউতের অফিস ভেঙে গুঁড়িয়ে দিয়েছে বিএমসি। হিমাচল প্রদেশ থেকে সেদিনই মুম্বই ফিরেছিলেন কঙ্গনা। তার আগে থেকেই বাকবিতণ্ডায় জড়িয়েছিলেন মহারাষ্ট্র সরকারের সঙ্গে। তাই কেন্দ্রের কাছ থেকে পেয়েছিলেন Y+ ক্যাটাগরি নিরাপত্তা। বিগত কয়েকদিনে একাধিকবার বিতর্কে জড়িয়েছেন অভিনেত্রী। এক সাক্ষাৎকারে তাঁর অফিস ভেঙে যাওয়ার পর কেমন লাগছিল জানতে চাইলে তিনি ধর্ষণের প্রসঙ্গ টানেন। আর তার জন্যই এবার নেটদুনিয়ায় নিন্দিত হচ্ছেন কঙ্গনা।

মুম্বইয়ে তার স্বপ্নের বিলাসবহুল অফিস বিএমসি ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়ার পরে, কঙ্গনা বলেছিলেন, “আমার মনে হচ্ছিল আমায় কেউ ধর্ষণ করেছে”। এই মন্তব্যের জন্যই প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি। কঙ্গনা নিজেকে নারীবাদী বলে দাবি করেন। নারীবাদী হয়েও কীভাবে তিনি এমন একটি ঘটনার জন্য ধর্ষণের তুলনা টানতে পারেন তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে নেট দুনিয়ায়।

এই মন্তব্যের জন্য কঙ্গনাকে নেটিজেনরা ভুয়ো নারীবাদী বা ফেক ফেমিনিস্ট বলে কটাক্ষ করেন। তবে কঙ্গনা থেমে যাওয়ার পাত্রী নন। তিনি তার মন্তব্যের স্বপক্ষে যুক্তি দিয়ে বলেন, “তোমরা সবাই ফেক ফেমিনিস্ট। তোমরা কি জানো না শরীর ছাড়াও মানুষের আবেগ, মন ও একটা মস্তিষ্ক থাকে। ধর্ষণ মানেই শুধু শারীরিক সঙ্গম নয়।”

মহারাষ্ট্র সরকারের প্রতি তোপ দেগে অভিনেত্রী বলেছেন, “সরকার মানে, তার দায়িত্ব অভিভাবকের মতো দায়িত্ব পালন করা উচিত। কিন্তু রক্ষক যখন ভক্ষক হয়ে যায়, তখন কেমন লাগে কী বলবো। কার সঙ্গে তখন লড়াই করব।” নানা রকমের যুক্তি খাড়া করলেও এই প্রসঙ্গে যে ধর্ষণের তুলনা টানা উচিত হয়নি সেই দাবিতে সরব হয়েছেন নেটিজেনরা।

যেকোনো বিষয় নিয়ে মতামত প্রকাশ করা কঙ্গনার স্বভাব। কিন্তু যিনি নিজেকে নারীবাদী বলে দাবি করেন তার থেকে এহেন মন্তব্য শুনে অবাক নেটিজেনরা।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।