নয়াদিল্লি: ফের একবার বেফাঁস মন্তব্য করে লাইমলাইটে এলেন প্রাক্তন ক্রিকেটার তথা ধারাভাষ্যকার সঞ্জয় মঞ্জরেকর। ইডেনে ঐতিহাসিক পিঙ্ক বল টেস্টের মাঝেই বুধবার কমেন্ট্রি বক্সে বাকযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন ধারাভাষ্যকার হর্ষ ভোগলে ও সঞ্জয় মঞ্জরেকর। ধারাভাষ্যকালীন ম্যাচ শেষে পিঙ্ক বল টেস্টের দৃশ্যমানতা নিয়ে একটি পোস্টমর্টেমের দাবি জানান ধারাভাষ্যকার তথা অভিজ্ঞ ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ হর্ষ ভোগলে। ভোগলের সেই দাবি নাকচ করে মঞ্জরেকর সাফ জানান, পিঙ্ক বলের দৃশ্যমানতা নিয়ে কোনও প্রশ্নই নেই।

এখানেই শেষ হয়নি বাকযুদ্ধ। মঞ্জরেকরের কথার সূত্র ধরে হর্ষ বলেন, ‘দু’দলের ব্যাটসম্যানদের কাছে অবশ্যই জানা উচিৎ যে তাঁরা কী বলছে।’ উত্তরে কটাক্ষের সুরে মঞ্জরেকর হর্ষকে প্রশ্ন করেন, ‘তোমার কী মনে হয় বিরাটের বল দেখার ক্ষেত্রে কোনওরকম সমস্যা হচ্ছিল?’ পালটা ভোগলে নরম সুরেই মঞ্জরেকরকে বলেন, ‘অজিঙ্কা রাহানে কিংবা চেতেশ্বর পূজারাকে জিজ্ঞেস করা হলে তাতে তো ক্ষতির কিছু নেই।’

উত্তরে শালীনতার গন্ডি অতিক্রম করে মঞ্জরেকর বলেন, ‘তুমি করলে করো, কিন্তু যারা একটু হলেও ক্রিকেট খেলেছে তারা কেউ এব্যাপারে জিজ্ঞেস করবে না।’ অর্থাৎ মঞ্জরেকর তাঁর কথার মাধ্যমে হর্ষকে বুঝিয়ে দিতে চেষ্টা করেন ক্রিকেটার হওয়ায় ক্রিকেট নিয়ে তাঁর জ্ঞান একটু হলেও বেশি। তবে আগামিদিনে পিঙ্ক বলের প্রসারে ক্রিকেটারদের সঙ্গে প্রশ্নোত্তর পর্ব জরুরি জানিয়েই শেষ অবধি নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থাকেন হর্ষ। অন্যদিকে, শালীনতার মাত্রা অতিক্রম করায় স্বাভাবিকভাবেই নেটিজেনদের রোষের মুখে পড়েন দেশের হয়ে ৩৭টি টেস্ট খেলা এই ব্যাটসম্যান।

ক্রিকেট লিখিয়ে আনন্দ বসু যেমন ঘটনার নিন্দা করে বলেছেন, ‘মঞ্জরেকরের প্রতি সম্মান আছে। সর্বোচ্চ লেভেলে ক্রিকেট খেলা নিঃসন্দেহে বড় ব্যাপার। কিন্তু হর্ষ ভোগলে যা বলেছে, সেটা করলেও তো ক্ষতি নেই।’ কেউ কেউ লিখেছেন, ‘মঞ্জরেকর একজন অহংকারী, কমেন্ট্রি বক্সে বসে এমন মন্তব্যে ফের একবার হতাশ করলেন।’ জয় ভট্টাচার্য যেমন বলেছেন, ‘এমন ঘটনা একেবারেই অপ্রত্যাশিত মঞ্জরেকরের থেকে। একইসঙ্গে হর্ষ ভোগলেকে সমর্থন জানিয়ে তিনি লেখেন, ‘একজন ধারাভাষ্যকার হিসেবে খুব যুক্তিসঙ্গত কথা বলেছেন হর্ষ। ক্রিকেটারদের এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা উচিৎ।’

মাসকয়েক আগে রবীন্দ্র জাদেজার ক্রিকেট প্রতিভা নিয়ে প্রশ্ন তুলেও নেটদুনিয়ায় সমালোচনায় শিকার হয়েছিলেন মঞ্জরেকর। শুধু তাই নয়, পারফরম্যান্সের মাধ্যমে পরবর্তীতে মঞ্জরেকরকে সমালোচনার জবাবও দিয়েছিলেন জাদেজা।