বিশেষ প্রতিবেদন: ১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীন হওয়ায় পর প্রথম প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন জহরলাল নেহরু ৷ কিন্তু তার বেশ কয়েক বছর আগে স্বাধীন সরকার গড়েছিলেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু৷ ১৯৪৩-এর ২১ অক্টোবর সিঙ্গাপুরে প্রথম ‘স্বাধীন’ ভারতীয় সরকার গড়েছিলেন৷ সেই আজাদ হিন্দ সরকারের মন্ত্রিসভার শীর্ষে ছিলেন স্বয়ং নেতাজি ৷

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে সুভাষ অনুভব করেন, এই রাজনৈতিক অস্থিরতা থেকে সুবিধা নেওয়া উচিত। তিনি মনে করতেন দেশের স্বাধীনতা নির্ভর করে অন্য দেশের রাজনৈতিক, সামরিক ও কুটনৈতিক সমর্থনের উপর। তাই তিনি ভারতের জন্য একটি সামরিক বাহিনী গড়ে তোলার উদ্যোগ নেন। সেই উদ্দেশ্যই তিনি ১৯৪১সালে ব্রিটিশ পুলিশের চোখে ধুলো দিয়ে ছদ্মবেশে দেশ ছেড়ে পালান৷

সেই সময় নানা জায়গা ঘুরে অবশেষে জার্মানিতে যান৷ গঠন করেন যুদ্ধবন্দিদের নিয়ে এক বাহিনী ৷ কিন্তু তিনি অনুভব করেন ভৌগোলিক কারণে অত দূর থেকে দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে চালান কঠিন৷ ফলে তখন নেতাজি পূর্ব-এশিয়ায় থেকে কাজ করতে চান৷

এদিকে রাসবিহারী বসু তখন জাপানে৷ নেতাজি জাপানে পৌঁছলে রাসবিহারী বসুর গড়া ‘আজাদ হিন্দ ফৌজ’-এর ভার তাঁর হাতে তুলে দেন৷ সেই সময় জাপান সরকার সর্বতোভাবেই এই স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারতকে সাহায্য করে ব্রিটিশ-শাসনমুক্ত করতে রাজি ছিল৷

তবে সুভাষচন্দ্র জাপানকে বোঝান, শুধুমাত্র মিলিটারি কার্যক্রম করাই এক্ষেত্রে ভারতের স্বাধীনতার জন্য পর্যাপ্ত নয়,আলাদা প্রচার কার্যক্রমও দরকার৷ নেতাজি স্বাধীন সরকার গঠনের উদ্যোগ নিলেন৷ ১৯৪৩-এর ২১ অক্টোবর সিঙ্গাপুরের ক্যাথে সিনেমা প্রেক্ষাগৃহে প্রতিষ্ঠিত হয় তথাকথিত প্রথম ‘স্বাধীন’ ভারতীয় সরকার ৷

সেই পূর্ণ মন্ত্রিসভার নেতৃত্বে ছিলেন সুভাষচন্দ্র বসু। তাঁর হাতে ছিল প্রধানমন্ত্রী দফতর ছাড়া বিদেশ ও যুদ্ধবিষয়ক দফতর৷ এছাড়া ওই সরকারে অন্যান্য মন্ত্রীরা ছিলেন এ. সি. চট্টোপাধ্যায়, লক্ষ্মী সাইগল এস. এ. আইয়ার প্রমুখ৷ রাসবিহারী বসুকে ওই সরকারের প্রধান উপদেষ্টা করা হয়েছিল৷

শপথ নেওয়ার পর সে রাতেই মন্ত্রিসভার পূর্ণাঙ্গ বৈঠকে হয়েছিল৷ তারপর গভীর রাতে সিঙ্গাপুর রেডিও থেকে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু ইঙ্গ-মার্কিন শক্তির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন৷ এই স্বাধীন সরকারে আয়ু অবশ্য বেশিদিনের হয়নি৷ একবছর দশ মাস অস্তিত্ব ছিল এই সরকারের ৷

আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ ও ভারতের মূল ভূখণ্ডের পূর্ব সীমান্ত ছিল এই সরকারের অধীন৷ ১৯৪৫-এর ৬ ও ৯ আগস্ট আমেরিকা পর পর অ্যাটম বোম ফেলায় জাপান আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়৷ এক্ষেত্রে জাপানই ছিল নেতাজির এই স্বাধীনতা সংগ্রাম প্রধান সাহায্যকারী৷ জাপানের আত্মসমর্থনের জন্য এই উদ্যোগও ব্যর্থ হয়৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও