লন্ডন: বিমান দুর্ঘটনাতেই মৃত্যু হয়েছিল নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর৷ এই যুক্তির সপক্ষে তথ্য-প্রমাণ তুলে ধরা হল ব্রিটেনের একটি ওয়াবসাইট৷ পেশ করা হল নেতাজির এক ঘনিষ্ট সহযোগী, দুই জাপানি চিকিৎসক, একজন দোভাষী এবং তাইওয়ানের এক নার্সের বক্তব্য৷ তাঁদের দাবি, ১৯৫৪ সালের ১৮ অগাস্ট, তাইপেই সীমান্তে বিমান দুর্ঘটনাতেই মৃত্যু হয়েছিল ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল আর্মির (আইএনএ) প্রতিষ্ঠাতা সুভাষ চন্দ্র বসুর৷

www.bosefiles.info নামক ওই ওয়াবসাইটে আরও দাবি করা হয়েছে, ১৯৪৫ সালে ১৮ অগাস্টের রাতে বিমান দুর্ঘটনায় যে নেতাজির মৃত্যু হয়েছিল, তা নিয়ে ওই পাঁচজন সহমত৷ ওই অভিশপ্ত দিনে নেতাজির সঙ্গেই ছিলেন তাঁর ঘনিষ্ট সহযোগী কর্নেল হাবিবুর রহমান খান৷ কিন্তু প্রাণে বেঁচে যান তিনি৷ দুর্ঘটনার ছয় দিন পর ১৯৪৫ সালের ২৪ অগাস্ট লিখিত বিবৃতি দিয়ে নেতাজির বলে যাওয়া শেষ কথা জানান হাবিবুর৷ তিনি বলেন, মৃত্যুর আগে নেতাজি বলেছিলেন, তাঁর মৃত্যু আসন্ন৷ আমি যেন তাঁর কথা দেশবাসীর কাছে পৌঁছে দিই৷ নেতাজি বলেন, ‘‘ভারতকে স্বাধীন করতে আমি শেষ পর্যন্ত লড়াই করেছি৷ আমি আমার জীবন দেশের জন্য উৎসর্গ করছি৷দেশবাসী! স্বাধীনতা আন্দোলন চলবে৷ ভারত স্বাধীন না হওয়া পর্যন্ত এই লড়াই থামবে না৷ আজাদ হিন্দ বাহিনী দীর্ঘজীবী হোক৷’’ ১৯৪৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে পুলিশ অফিসার ফিনে এবং দাভিসের নেতৃত্বে ভারত থেকে দুটি তদন্তকারী দল ব্যাংক, সাইগন এবং তাইপেই যায়৷ তদন্তের পর তাঁরা জানান, বিমান দুর্ঘটনাতেই মৃত্যু হয়েছে নেতাজির৷