কাঠমাণ্ডু: যে কোনও মুহূর্তে পদত্যাগ করতে পারেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী ওলি। জোর জল্পনা শুরু। কারণ পদত্যাগের জল্পনার মধ্যেই এদিন সকালে নেপালের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে দেখা করতে যান ওলি।

দীর্ঘক্ষণ কথা হয় দুপক্ষের। মূলত মন্ত্রিসভার মিটিংয়ের বিষয়ে আলোচনা করতে নেপালের প্রধানমন্ত্রীর সে দেশের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এই বৈঠক বলে জানা যাচ্ছে।

অন্যদিকে, এদিনই আবার কেন সে দেশের জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবেন ওলি, তা নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়েছে। তাহলে কি সেখানেই তাঁর পদত্যাগের কথা বলবেন?

গত কয়েকদিন ধরে পদত্যাগের জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছে নেপালের প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলিকে। এরই মধ্যে বুধবার বুকে ব্যাথা নিয়ে তাঁকে ভর্তি করা হল হাসপাতালে।

এদিনের তাঁকে কাঠমান্ডুর শহীদ গঙ্গালাল ন্যাশনাল হার্ট সেন্টারে ভর্তি করা হয়েছে। তার প্রেস অ্যাডভাইজার সূর্য থাপা এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন, নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষার অংশ হিসেবে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

গত সপ্তাহেই নেপালের প্রধানমন্ত্রী অভিযোগ করেছিলেন যে তাঁর সরকার ফেলে দেওয়ার ষড়যন্ত্র চলছে ভারতে। আর তারপরই প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলির বিরুদ্ধে ক্ষোভ বাড়ল দলের অন্দরেই। নেপালের কমিউনিস্ট পার্টির শীর্ষনেতারাই ওলির পদত্যাগের দাবি জানাচ্ছেন।

মঙ্গলবার দলের স্ট্যান্ডিং কমিটির একটি বৈঠক ছিল। আর সেখানেই ওলির পদত্যাগের দাবি জানিয়েছেন অনেকে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, পুষ্প কমল দহল, মাধব নেপাল, ঝালা নাথ খানাল সহ একাধিক নেতা ওলির পদত্যাগের দাবি জানিয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। তাঁদের দাবি ওলির নেতৃত্বাধীন সরকার প্রশাসন দিতে ব্যর্থ। আর তা থেকে নজর ঘোরানোর জন্যই ভারতের দিকে আঙুল তুলছেন ওলি।

সম্প্রতি নেপালের প্রধানমন্ত্রী দাবি করেছিলেন, নেপালের নতুন মানচিত্র নিয়ে ভারতে যে বিরোধিতা তৈরি হয়েছে, তার জেরেই তাঁকে পদ থেকে সরিয়ে ফেলার ষড়যন্ত্র চলছে ভারতে। তবে তাঁর দাবি, সব চেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যাবে। ক্ষমতাব থাকবেন তিনিই।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।