আবুজা: নয় নয় করে ৯০০ জন শিশু৷ প্রত্যেকেই অংশ নিয়েছিল আইএস ও বোকো হারামের মতো জঙ্গি গোষ্ঠী দমন অভিযানে৷ এই শিশুদের হাতে অস্ত্র তুলে দেওয়া হয়েছিল৷ তাদেরই এবার মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে৷ এই ধরণের জঙ্গি বিরোধী শিশু যোদ্ধাদের জন্য এগিয়ে এসেছে ইউনিসেফ৷ রাষ্ট্রসংঘের তরফে জানানো হয়েছে, বোকো হারাম ও আইএস নির্মূলে সেনাবাহিনী ঘনিষ্ঠ মিলিশিয়া বাহিনী ‘সিভিলিয়ান জয়েন্ট টাস্ক ফোর্স’-এর সহযোগী হিসাবে কাজ করছিল এই শিশুরা৷

জার্মানির সংবাদ মাধ্যম ডি ডাব্লিউ এই বিষয়ে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে৷ রিপোর্টে উঠে এসেছে জঙ্গি অধ্যুষিত আফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়ার কথা৷ ইউনিসেফ বলেছে, মিলিশিয়াদের হাত থেকে এখনও পর্যন্ত মুক্তি পাওয়া শিশু যোদ্ধার সংখ্যা ১,৭০০ জন৷ গত অক্টোবরে প্রথম দফায় ৮৩৩ জনকে মুক্তি দেওয়া হয়৷

জঙ্গি দমনে নাইজেরিয়ায় শিশুদের ব্যবহার হয়েই থাকে৷ বোকো হারামের পাশাপাশি মিলিশিয়া বাহিনী ‘সিভিলিয়ান জয়েন্ট টাস্ক ফোর্স’ শিশুদের নিয়োগ করে থাকে৷ সেখানে মোট কতজন ‘শিশু যোদ্ধা’ রয়েছে তার সুস্পষ্ট কোনও হিসাব নেই৷ রিপোর্টে উঠে এসেছে, জঙ্গি দমন অভিযানে এই শিশুদের নেওয়া হয়৷ সরাসরি তারা জঙ্গিদের সঙ্গে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়৷ আন্তর্জাতিক সংস্থার মধ্যস্থতায় তাদের মুক্তি দেওয়া হয়েছে৷ নাইজেরিয়ার উত্তরাঞ্চলে বোকো হারাম জঙ্গিদের দমনে ২০১৩ থেকে ২০১৭ সালে সাড়ে তিন হাজার শিশুকে নিযুক্ত করা হয়৷

নাইজেরিয়ায় ইউনিসেফের প্রধান মোহামেদ ফাল জানিয়েছেন, নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বিরোধের বলি হচ্ছিল শিশুরা৷ এই শিশুরা সেখানে প্রতিনিয়ত মৃত্যু, হত্যা ও সংঘাত প্রত্যক্ষ করেছে৷’ নাইজেরিয়ায় বোকো হারাম ও ইসলামিক স্টেট বিরোধী যুদ্ধে প্রায় ৩০ হাজার লোকের মৃত্যু হয়েছে৷ প্রায় ১০ লক্ষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন৷ এলাকাটি খনিজ তেল সমৃদ্ধ৷ এর দখল নিতে মরিয়া জঙ্গিরা৷ এখানে দ্রুত সংঘাত থামার কোনও লক্ষণ নেই৷