স্টাফ রিপোর্টার, দীঘা : বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হয়েছে গভীর নিম্মচাপ। যার জেরে ২২ থেকে ২৪ শে অক্টোবর পর্যন্ত প্রবল বৃষ্টিপাত ও ঘুর্ণিঝড়ের সম্ভাবনার কথা আগাম জানিয়ে দিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

সেইমতো বৃহস্পতিবার থেকেই নিম্নচাপের জেরে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া শুরু হয়েছে গোটা জেলায়।

মূলত উপকূল এলাকায় তার প্রভাব বেশি পড়বে। তাই দীঘা পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে দীঘায় সতর্কতা জারি করা হয়েছে। সেই সঙ্গে সমুদ্রে মৎস্যশিকার ও পর্যটকদের সমুদ্রে নামতে নিষেধ করার কথা ঘোষণা করা হয়েছে।

শুক্রবার দীঘা থানার পুলিশ সঙ্গে এনডিআরএফ’এর প্রতিনিধিরা এলাকায় এলাকায় মাইকিং করছেন। যেকোনও সময় ভারি থেকে অতিভারী বৃষ্টি ও ঝড় হতে পারে তাই জেলা প্রশাসন আগে থেকেই তৎপর রয়েছে।

এদিকে করোনার কারনে দীর্ঘদিন দীঘার পর্যটন কেন্দ্র পর্যটকদের জন্য বন্ধ থাকলেও তা এখন খুলে গিয়েছে। যারফলে পুজোর ছুটি কাটাতে দীঘায় প্রচুর সংখ্যক পর্যটকদের আনাগোনা শুরু হয়েছে। আর এমন সময় প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়ে দীঘায় বেড়াতে আসা বহু সংখ্যক পর্যটক সমস্যায় পড়েছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.