নয়াদিল্লি: দিন দিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে ভারতবর্ষে। রোজ বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। এর মধ্যেই চলছে টিকাকরণের কাজ। ৪৫ বছর বয়স বা তার বেশিদের টিকা দেওয়ার ছাড়পত্র দিয়েছে ভারত সরকার। অনেক ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে করোনার টিকা নিয়েও অনেকে আক্রান্ত হয়েছেন। যা আরও উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে ইউপিএসসি পরিচালিত ন্যাশনাল ডিফেন্স একাডেমির পরীক্ষা স্থগিত করার দাবি সামনে এসেছে।

আগামী ১৮ এপ্রিল ২০২১ ন্যাশনাল ডিফেন্স একাডেমির পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। জাতীয় লোকসেবা আয়োগ বা ইউনিয়ন পাবলিক সার্ভিস কমিশন (UPSC) এই পরীক্ষা পরিচালনার দায়িত্বে। এই পরীক্ষা পাশ করলে দেশের সেবায় কাজ করার সুযোগ পাওয়া যায়। ভারতীয় সেনাবাহিনী বা ভারতীয় নৌসেনার হয়ে দেশকে রক্ষা করার গুরু দায়িত্ব পাওয়া যায়। চাকরি হয় সরাসরি ভারত সরকারের প্রতিরক্ষা দপ্তরের অধীনে। দেশের সেবায় নিজেদের নিয়োজিত করতে অনেকেই এই পরীক্ষা দেওয়ার আবেদন করেন।

খুব সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হস্তক্ষেপে ছাত্রছাত্রীদের দাবি মেনে নিয়ে দশম শ্রেণীর পরীক্ষা বাতিল ও দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষা স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে CBSE। কমিশনের কাছে ইতিমধ্যেই ন্যাশনাল ডিফেন্স অ্যাকাডেমির পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা স্থগিত করার দাবি জানিয়েছেন। যেহেতু পরীক্ষার দিন খুব সামনেই তাই UPSC দ্রুত এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বলেই জানা যাচ্ছে।

ভারতে করোনা প্রকোপ দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইতিমধ্যেই কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষ অতিক্রান্ত হয়েছে।পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা ভোটের আবহে সংক্রমন দ্রুত বৃদ্ধির প্রভুত আশঙ্কা রয়েছে।দেশের বিভিন্ন জায়গায় পুনরায় লকডাউন ও কঠোর নিয়মাবলী বলবৎ করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে পরীক্ষা নেওয়া বিপদজ্জনক হতে পারে বলেই মত চিকিৎসক মহলের।

পরীক্ষা স্থগিত করা নিয়ে খুব দ্রুতই কমিশন তাদের সিদ্ধান্ত জানতে পারে। ছাত্রছাত্রীদের নিয়মিত কমিশনের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট upsc.gov.in এর উপর নজর রাখতে বলা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট পরীক্ষার অ্যাডমিট কার্ড ও উপরোক্ত ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করা যাবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.