প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি: নয়া পদ্ধতি মাওবাদীদের৷ নাশকতার কাজে এবার ব্যবহার করা হচ্ছে শিশুদের৷ মঙ্গলবার লোকসভায় এক লিখিত জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী জি কিষাণ রেড্ডি জানান, মাওবাদীদের দলে নতুন করে নেওয়া হচ্ছে শিশুদের৷ তাদের মগজ ধোলাই করে নাশকতার ছক কষার কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে৷ আর এই ঘটনা ঘটছে বিশেষত ঝাড়খণ্ড ও ছত্তিশগড়ে৷

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে সিপিআই মাওবাদী শিশুদের দিয়ে রান্নার কাজ, বিভিন্ন মালপত্র বওয়ার কাজ ও যৌথবাহিনীর গতিবিধি সম্পর্কে তথ্য যোগাড় করানো হচ্ছে৷ এই সংক্রান্ত বিস্তারিত রিপোর্টও হাতে এসেছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের৷ পাশাপাশি তাদের বন্দুক চালানোর প্রশিক্ষণও দেওয়া হচ্ছে৷ তৈরি করা হচ্ছে বিভিন্ন নাশকতা মূলক কাজ চালানোর জন্য৷

আরও পড়ুন : Breaking News: রাজ্যের প্রস্তাবিত বাংলা নাম খারিজ মোদী সরকারের

রেড্ডি জানান ২০১৫ সাল থেকে মাওবাদী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিয়ে কেন্দ্র৷ নেওয়া হয়েছে একাদিক প্রজেক্ট ও অ্যাকশন প্ল্যান৷ তবে এবার সেসব খতিয়ে দেখে নতুন করে অ্যাকশন প্ল্যান তৈরির কথা এদিন জানান রাষ্ট্রমন্ত্রী৷ তিনি বলেন তা তৈরি করতে গেলে মাথায় রাখা হবে এলাকার মানুষের সুবিধা অসুবিধার কথা, এলাকার উন্নয়ন ও মানবাধিকারের বিষয়টিও৷

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের পক্ষ থেকে কিষাণ রেড্ডি জানান, ছত্তিশগড় ও ঝাড়খণ্ড সরকারকে এই ইস্যুতে সব রকম সাহায্য করবে কেন্দ্র৷ কেন্দ্রের পক্ষ থেকে সিএপিএফ ব্যাটেলিয়ন মোতায়েন বা মাওবাদী অধ্যুষিত এলাকায় চপার সরবরাহ করে নজরদারি বাড়ানোর ক্ষেত্রে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে এদিন৷ এছাড়াও মোতায়েন করা হতে পারে ইণ্ডিয়া রিজার্ভ বিএনএস বা স্পেশাল ইণ্ডিয়া রিজার্ভ বিএনএস গ্রুপকে৷

আরও পড়ুন : ‘হালালা বৈধ আর অভিনয় অবৈধ’, মুসলমানদের উন্নতি নিয়ে সংশয়ে কংগ্রেস নেতা

মাওবাদী মোকাবিলায় রাজ্য পুলিশ ও সশস্ত্র পুলিশকে তৈরি রাখার কথা বলা হয়েছে রিপোর্টে৷ মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, গত বেশ কয়েক বছরের তুলনায় মাওবাদী হামলার পরিমাণ উল্লেখযোগ্য ভাবে কমেছে৷ ২০০৯ সালে যেখানে হামলার পরিমাণ ছিল ২২৫৮টি, সেখানে ২০১৮ সালে মাওবাদী হামলার পরিমাণ ৮৩৩ এসে দাঁড়িয়েছে৷ ২০১০ সালে মাওবাদী হামলায় মারা গিয়েছেন ১০০৫ জন৷ সেখানে ২০১৮ সালে মাওবাদী হামলায় প্রাণনাশের সংখ্যা ২৪০৷

এর আগে, সাউথ এশিয়া টেরোরিজম পোর্টাল নামে একটি সংস্থা পরিসংখ্যান তুলে ধরে জানায়, ইউপিএ জমানার তুলনায় বর্তমান বিজেপি সরকারের আমলে মাওবাদী হামলা অনেক কমেছে৷ ২০১০ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৪ সালের মে মাস অবধি ১ হাজার ২৯২টি মাও হামলা হয়েছে৷ ওই বছর মে মাসে কেন্দ্রে ক্ষমতা বদল হয়৷ সরকারে আসে বিজেপি৷ তারপর থেকে উল্লেখযোগ্যভাবে করতে থাকে মাও হামলার পরিমাণ৷