ইসলামাবাদ: এয়ারপোর্টে পৌঁছেই গ্রেফতার হবে পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ ও তাঁর মেয়ে মরিয়ম শরিফ। শুক্রবার সন্ধেয় তাঁদের পাকিস্তানে পৌঁছনোর কথা। যদিও বিমানের দেরি হওয়ার কারণে তাঁদেরকে অএপক্ষা করতে হয়েছে আবু ধারবির বিমানবন্দরে।

তাঁরা বিমান থেকে নামলেই স্বাগত জানানোর পরিকল্পনা করেছেন নওয়াজ শরিফের দল পিএমএল-এর সদস্যরা। আর তা আটকাতে এয়ারপোর্টের চারপাশ ঘিরে ফেলেছে নিরাপত্তাবাহিনী। যে কোনও মূল্যে সমর্থকদের আটকাতে সবরকম চেষ্টা চালাবে তারা।

অসুস্থ স্ত্রী’র পাশে থাকতেই লন্ডনে গিয়েছিলেন শরিফ। হাসপাতালে ভর্তি কুলসুম নওয়াজ। অগত্যা তাঁকে সেই অবস্থায় রেখেই ফিরতে হচ্ছে পাকিস্তানে। গত ৬ জুলাই শরিফ ও মেয়ে মরিয়ামের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেয় পাকিস্তানের আদালত।

এদিকে, পাকিস্তানে ফেরার আগে অসুস্থ স্ত্রী’র সঙ্গে শরিফের একটি ছবি পোস্ট করেছেন তাঁর মেয়ে মরিয়ম। সেই ছবিই বিভিন্ন দিকে ছড়িয়ে সমবেদান আদায়ের চেষ্টা চালাচ্ছে তাঁর দল। ২৫ জুলাই নির্বাচনের কয়েকদিন মাত্র আগে, এটাই শেষ হাতিয়ার দলের।

আগেই, লন্ডন থেকে নওয়াজ বার্তা দিয়েছিলেন-‘জেলকে আমি ভয় পাই না৷ আমি স্বাধীন পাকিস্তানের নাগরিক৷ আমার ভাগ্য কয়েকজন সেনা আধিকারিক ঠিক করবে না৷’ আর এবার ফ্লাইটে রেকর্ড করা এক ভিডিও মেসেজে তিনি জানান, ‘দেশে কঠিন সময় চলছে৷ আমার পক্ষে যতটা সম্ভব ছিল আমি করেছি৷ আমার দশ বছরের শাস্তি হয়েছে এবং আমাকে সরাসরি জেলে নিয়ে যাওয়া হবে৷ কিন্তু আমি চাই পাক নাগরিকরা এটা জানুক যে, আমি এসব তাদের জন্যই করছি৷’

দুর্নীতি মামলায় গত ৬ জুলাই নওয়াজ শরিফকে ১০ বছরের কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। নওয়াজের সঙ্গে তার মেয়ে মরিয়মকেও সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীর শ্যালক ক্যাপ্টেন অবসরপ্রাপ্ত সফদারকে এক বছরের কারদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এছাড়া নওয়াজকে ৮০ লাখ এবং মরিয়মকে ২০ লাখ ব্রিটিশ পাউন্ড জরিমানা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে আদালত৷