নয়া দিল্লি: ভারতের জল সীমানায় দেখা গেল চিনা যুদ্ধজাহাজ। আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের কাছেই এই চিনা জাহাজ লক্ষ্য করা গেছে বলে জানা গিয়েছে। লক্ষ্য করার পরেই চিনা ওই জলযানটিকে বের করে দেয় ভারতীয় নৌসেনা। ভারতীয় সেনা বাহিনীর তরফে জানানো হয়েছে হয়তো ভারতে নজরদারি করতেই এই চিনা জলযান এসেছিল।

চাইনিজ রিসার্চ ভেসেলটির নাম সি ইয়ান ১ বলে জানা গিয়েছে। আন্দামান-নিকোবর দ্বীপপুঞ্জের একদম কাছে এই জাহাজ লক্ষ্য করা গিয়েছিল। এরপরেই জাহাজটিকে সীমানা ছেড়ে চলে যেতে বলে ভারতীয় নৌ বাহিনী।

উল্লেখ্য, ভারতীয় ও আন্তর্জাতিক আইন কোনও মতেই অন্য দেশের সীমানায় কোনও রকম রিসার্চ বা কোনও কাজকর্মের অনুমতি দেয় না। ভারতীয় সেনা ওই চাইনিজ ভেসেলটির দিকে কড়া নজর রাখে। চিনা ভেসেলটি ভারতের জলসীমানায় বেশ সন্দেহজনক ভাবে ছিল বলেই মনে করা হচ্ছে। হতে পারে, যে ইন্ডিয়ান নেভির স্টেশঙ্গুলির দিকে খেয়াল রাখা ও ভারতের জল সীমানার নীচের দিকে নজর রাখতেই জলসীমানায় এসেছিল চৈনিক জাহাজটি।

ভারতীয় নৌসেনাবাহিনীর কাছে আন্দামান কৌশলগতভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এই দ্বীপের অবস্থানটা এমনই যেখান থেকে দক্ষিণ এশিয়া ও ভারত মহাসাগরের বুকে নজরদারি চালাতে পারে ভারতীয় বাহিনী।

আরও পড়ুন – বাবরি মসজিদ মামলায় সরিয়ে দেওয়া হল মুসলিম পক্ষের আইনজীবীকে

প্রসঙ্গত, সীমান্তে এধরনের ঘটনা ঘটলেও অন্যদিকে ভারতকে ঘুরিয়ে সমঝোতার বার্তা দিয়েছে চিন। ২৮ ও ২৯ তারিখ বেজিংয়ে অনুষ্ঠিত ”চতুর্থ ভারত-চিন থিংক-ট্যাঙ্কস ফোরাম” এ এমনই বার্তা দেন লুও ঝাওহুই।

এই ফোরামটির প্রতিষ্ঠা হয় ২০১৫ সালে। নরেন্দ্র মোদী যখন চিন সফরে যান, তখন এই ফোরামটির প্রতিষ্ঠা করা হয়। চলতি বছরে এই ফোরামের উদ্দেশ্য হল, দুদেশের মধ্যে উন্নয়ন্মূলক অংশীদারীত্ব আরও বাড়িয়ে তোলা। পাশাপাশি এক বিব্রিতিতে ভারতীয় দূতাবাস জানিয়েছে, পারস্পারিক গুরুত্ব ও শিক্ষার বিষয়েও গুরুত্ব দেওয়া হবে।