কলকাতা: কলকাতা পুরসভায় নেতাজির ব্যবহৃত চেয়ারটিকে বালিগঞ্জ মেয়র’স গেস্ট হাউজ থেকে এনে পুরভবনে বসালেন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়৷ দীর্ঘদিন অযত্নে পড়ে থাকে নেতাজির ব্যবহৃত চেয়ার ও টেবিলকে এবার বিশেষ সংরক্ষণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ 
পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, ১৯৩০ সালে কলকাতা পুরসভার মেয়র থাকাকালীন নেতাজি যে চেয়ারটি ব্যবহার করতেন, সেই চেয়ারটি দীর্ঘদিন ধরে বালিগঞ্জ মেয়র’স গেস্ট হাউসে অযত্নে পড়ে ছিল৷ বিষয়টি মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের নজরে আসার পর চেয়ারটিকে পুরভবনে নিয়ে আসার নির্দেশে দেন৷ জানা গিয়েছে, নেতাজির ওই চেয়ারটি মেয়রের ঘরে যাওয়ার মূল সিঁড়ির পাশে রাখা হবে৷ সোমবার পুরভবনে নেতাজির ব্যবহার করা টেবিল এসে গেলেও চেয়ারটি পালিশ করতে পাঠানো হয়েছে৷ এদিন মহানাগরিক শোভন চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘সাধারণ মানুষের দেখার জন্য এইগুলিকে গেস্ট হাউজ থেকে পুরভবনে আনা হয়েছে৷ অত্যন্ত মর্যাদার সঙ্গে এই চেয়ার-টেবিলগুলি সংরক্ষণ করে রাখা হবে৷’ 
 

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.