রাওয়ালপিণ্ডি: এখনও ১৭-র ঘরে ঢোকেননি, তার আগেই জোড়া বিশ্বরেকর্ডের সঙ্গে নিজের নাম জড়িয়ে ফেললেন পাকিস্তানের নবাগত পেসার নাসিম শাহ৷ কিছুদিন আগে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে সব থেকে কম বয়সে টেস্টের এক ইনিংসে পাঁচ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করেছিলেন নাসিম৷ এবার বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টেস্টে সব থেকে কম বয়সে টেস্টে হ্যাটট্রিক করার নজির গড়লেন পাক কিশোর৷

আরও পড়ুন: গতবারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে হারিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ

মূলত নাসিমের হ্যাটট্রিকের সুবাদেই তৃতীয় দিনের শেষে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টে চালকের আসনে পাকিস্তান৷ প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ২২৩ রানের সুবাদে পাকিস্তান তোলে ৪৪৫ রান৷ ২১২ রানের বড় ব্যবধানে পিছিয়ে থেকে বাংলাদেশ তৃতীয় দিনের খেলা শেষ করে তাদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৬ উইকেটের বিনিময়ে ১২৬ রান তুলে৷ অর্থাৎ পাকিস্তানের থেকে এখনও ৮৬ রানে পিছিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ৷ ইনিংস হার এড়াতে বাকি চার উইকেটে লড়াই চালাতে হবে টাইগারদের৷

আরও পড়ুন: বিশ্বকাপ ফাইনাল শেষে হাতাহাতিতে জড়ালেন দু’দলের ক্রিকেটাররা

বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংসের ৪১তম ওভারের চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ট বলে নাসিম ফিরিয়ে দেন যথাক্রমে নাজমুল হোসেন শান্ত, তাইজুল ইসলাম ও মাহমুদুল্লাহকে৷ কাকতলীয়ভাবে নাসিমের ভেঙে দেন এক বাংলাদেশি ক্রিকেটারের বিশ্বরেকর্ড৷ এর আগে সব থেকে কম বয়সে টেস্টে হ্যাটট্রিক করার রেকর্ড ছিল বাংলাদেশের লেগ-স্পিনার অলোক কাপালির দখলে৷ ২০০৩ সালে তিনি ১৯ বছর বয়সে পেশোয়ারে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে হ্যাটট্রিক করেছিলেন৷ এবার থেকে সেই রেকর্ডে লেখা থাকবে ১৬ বছরের নাসিমের নাম৷

আরও পড়ুন: আবার সেঞ্চুরি গিলের, হাফ-সেঞ্চুরি পূজারা-বিহারীর

নাসিম তার আগে সঈফ হাসানের উইকেটটিও তুলে নিয়েছিলেন৷ প্রথম ইনিংসে ১টি উইকেট নেওয়া নাসিম দ্বিতীয় ইনিংসে এখনও পর্যন্ত ২৬ রানের বিনিময়ে ৪টি উইকেট নিয়েছেন৷ দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের হয়ে তামিম ৩৪, নাজমুল ৩৮ ও মোমিনুল অপরাজিত ৩৭ রান করেন৷ তার আগে পাকিস্তানের হয়ে প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরি করেন শান মাসুদ (১০০) ও বাবর আজম (১৪৩)৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.