নয়াদিল্লি: ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে। আয়ু মাত্র ১৪ দিন। তার মধ্যে কয়েকটা দিন ইতিমধ্যই কেটে গিয়েছে। তাই দ্রুত যোগাযোগ করার চেষ্টা চলছে। এবার ইসরোর সঙ্গে সেই কাজে হাত লাগাল নাসাও। তারাও খুঁজে বের করবে কোথায় বিক্রম।

জানা গিয়েছে, বিক্রমের অবস্থান খুঁজে বের করতে সাহায্য করবে নাসা। বর্তমানে অরবিটারের সাহায্যে বিক্রমের অবস্থান বোঝার চেষ্টা করছে ইসরো। একইসঙ্গে এই মুহূর্তে চাঁদের চারপাশে ঘুরে বেড়াচ্ছে নাসার একটি অরবিটারও। সেই অরবিটারই এবার বিক্রমের অবস্থান খুঁজে বের করার চেষ্টা করবে। বিক্রমের অবস্থান যেখান হওয়ার কথা, সেখানে পাঠানো হবে অরবিটারটিকে। নাসা সেই তথ্য পাঠাবে ইসরোকে।

নিউ ইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত একটি রিপোর্টে নাসার একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, বিক্রম ল্যান্ডারের যেখানে অবস্থান হওয়ার কথা সেখাএ যাবে নাসার অরবিটার। তাতে তোলা সব ছবি শেয়ার করা হবে ইসরোর সঙ্গে। তবে সূত্রের খবর, নাসা ইতিমধ্যেই বিক্রমকে খোঁজার জন্য ইসরোকে সাহায্য করতে শুরু করেছে।

আমেরিকার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো আগেই অভিনন্দন জানিয়েছে ইসরোকে। ট্যুইট করে সঙ্গে থাকার বার্তা দিয়েছে নাসা। তারা লিখেছে, ‘মহাকাশটা বড্ড কঠিন। তোমাদের পথচলা আমাদের অনুপ্রাণিত করেছে। আগামিদিনে সৌরজগতকে আরও বেশি আবিষ্কার করার সঙ্গী হতে পারি আমরা।’

চাঁদের অবতরণের মিনিট দুয়েক আগে ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় ইসরোর। তবে চন্দ্রযান ২ কিন্তু পুরোপুরি ব্যর্থ হয়নি। অরবিটারের সঙ্গে যোগাযোগ ছিন্ন হয়নি। বরং সেটি সঠিক কক্ষপথে চাঁদকে প্রদক্ষিণ করছে, ছবি তুলেও পাঠাবে ভারতে। মাত্র পাঁচ শতাংশ ব্যর্থ হয়েছে বলে জানাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

জানা গিয়েছে, এই অরবিটারের ছবি থেকে বিজ্ঞানীদের হাতে উঠে আসবে গুরুত্বপূর্ণ বৈজ্ঞানিক তথ্য। যেভাবে জিএসএকভি মার্ক ৩-তে চন্দ্রযান মহাকাশে পৌঁছেছে ও চাঁদের কক্ষপথে সফলভাবে প্রবেশ করেছে, তা ভারতের মহাকাশ গবেষণার গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে থাকবে বলে মনে করা হচ্ছে।