ওয়াশিংটন: বিলিয়নেয়ার এলন মাস্কের মহাকাশ সংস্থা স্পেসএক্সকে চাঁদে যাওয়ার মহাকাশযান তৈরির বরাত দিল মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। ২০২৪ সালের শুরুর দিকে মহাকাশচারীদের চাঁদে পাঠানোর জন্য মহাকাশযান তৈরির বরাত দেওয়া হয়েছে এলন মাস্কের কোম্পানিকে। ২.৯ বিলিয়ন ডলারের এই চুক্তি পেয়েছে স্পেসএক্স।

এই চুক্তি পেতে এলন মাস্কের স্পেস এক্স একাই দর হেঁকেছিল, কিন্তু অন্যদিকে অ্যামাজনের মালিক বেজস ব্লু অরিজিনের হয়ে লকহিড মার্চিন কর্প, নর্থরোপ গ্রুমম্যান কর্প এবং ড্রেপারের সঙ্গে একযোগে দর হেঁকেছিল।

এই চুক্তির পরেই নাসার তরফে জানানো হয়, দুই মার্কিন মহাকাশচারীকে নিয়ে চন্দ্রযান চাঁদের পৃষ্ঠে যাবে। নাসার স্টিভ জুরস্কি বলেন, ;যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আমাদের ল্যান্ডিং শেষ করা উচিৎ।’ তিনি বলেন, যদি আমরা এটা করতে পারি তবে ২০২৪ সালে আমরা চাঁদের পৃষ্ঠে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিতে পারি। উল্লেখ্য, মহাকাশযান তৈরির জন্য স্পেসএক্স-এর সঙ্গে যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে সেই মহাকাশযানে চেপেই পাঁচ দশকে প্রথমবার চন্দ্র পৃষ্ঠে মহাকাশচারীরা অবতরণ করবে।

অন্যদিকে ২০২৪ সালে চাঁদের পৃষ্ঠে নামার ক্ষেত্রে আরও একটি বিশেষ ব্যাপারে নজর দিয়েছে নাসা। আপাতত নাসার প্ল্যান অনুযায়ী ২০২৪ সালে যে ব্যক্তি প্রথম চাঁদের পৃষ্ঠে পা রাখতে চলেছেন তিনি অবেন একজন অশ্বেতকায় ব্যক্তি। বিশেষ উল্লেখযোগ্য ব্যাপার হল এর আগে কোনও অশ্বেতকায় ব্যক্তি চাঁদের পৃষ্ঠে নামেননি।

অন্যদিকে ২০৩০ সালের আগেই স্পেস এক্সের স্টারশিপ রকেট মঙ্গলে নামবে বলে জানিয়েছেন এলন মাস্ক। সম্প্রতি এ নিয়ে একটি টুইট করেছেন ধনকুবের ও বিজ্ঞানপ্রেমী এলন মাস্ক। সেখানে তিনি লিখেছেন, “২০৩০ এর আগেই মঙ্গলে স্টারশিপ নামাবে স্পেস এক্স। সত্যিই কঠিন প্রান্তিকতা মঙ্গল বেস আলফা স্বাবলম্বী করে তুলছে। মঙ্গল বেস আলফা সাসটেনিং তৈরি করা সত্যিই কঠিন।”

এর আগে গত মাসে প্রাইভেট স্পেস কোম্পানি এ মাসের গোড়ার দিকেই স্টারশিপ SN10 রকেটের সফল উৎক্ষেপণ ঘটায়। ১০ হাজার কিলোমিটার উচ্চতায় একে পাঠানো হয়েছিল। পরে ফের সেটিকে ফিরিয়ে আনা হয়। মাটিতে নামার ৬ মিনিটের মধ্যে রকেটটি ধ্বংস হয়ে যায়।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.