নয়াদিল্লি : আমাদের সৌরজগতের বাইরের জগত কেমন, তার অপূর্ব ছবি তুলে ধরল নাসা। মার্কান যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা সম্প্রতি নিজেদের অফিশিয়াল ট্যুইটার হ্যান্ডেলে প্রকাশ করেছে নতুন একটি সৌরজগতের ছবি, যার নাম NGC 2336 ।

হাবল টেলিস্কোপের মাধ্যমে সোমবার এই অপূর্ব ছবি তুলে ধরেছে নাসা। ১৮৭৬ সালে জার্মান মহাকাশচারী উইহেলম টেমপেল এই নয়নাভিরাম নীল সৌরজগতের ছবি তুলে ধরেন পৃথিবীর সামনে। নাসা নিজেদের ট্যুইট ক্যাপশনে লিখেছে “Check out NGC 2336, a galaxy about 100 million light-years away. Discovered in 1876, by astronomer William Tempel, the image captured by @NASAHubble shows the sheer size and beauty of this majestic galaxy.”

এই ছবির সঙ্গে নাসা শেয়ার করেছে কিছু মজাদার তথ্য। নাসা জানাচ্ছে এই গ্যালাক্সি (NGC 2336) নর্দার্ণ কনস্টেলেশন অফ ক্যামেলোপারডালিস বা দ্যা জিরাফ থেকে ১০০ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। পৃথিবী থেকে এই গ্যালাক্সির দূরত্ব ১০ কোটি আলোকবর্ষ।

এই সৌরজগতের যে ছবি নাসা প্রকাশ করেছে, তাতে অদ্ভুত এক নীল আলো ছড়িয়ে রয়েছে গ্যালাক্সি জুড়ে। এতেই আরও মোহময় ছবি পেয়েছে পৃথিবী। মহাকাশের অপার রহস্যময়তায় ঘেরা নীলচে গ্যালাক্সির প্রেমে পড়েছেন বহু মহাকাশপ্রেমী।

জার্মান মহাকাশচারী উইহেলম টেমপেল মাত্র ১১ ইঞ্চির টেলিস্কোপের মাধ্যমে এই গ্যালাক্সি আবিষ্কার করেন। নাসা যে ছবি প্রকাশ করেছে তাতে নীলচে আলোয় মোড়া প্রচুর গ্রহ ও তারার সমাহারে জিলিপির প্যাঁচের মত আকৃতির NGC 2336-কে দেখা যাচ্ছে। দিন কয়েক আগেই বিজ্ঞানীরা একটি নতুন গ্রহের সন্ধান পান। এই গ্রহের নাম Gliese 486b। পৃথিবী থেকে এর আয়তন ২.৮ গুণ বড় বলে জানানো হয়।

Gliese 486b, আমাদের সৌরজগত আকাশগঙ্গা থেকে ২৬ আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত। নিজেদের সৌরজগতের মূল নক্ষত্রের খুব কাছেই এর অবস্থান হওয়ায় অত্যন্ত উষ্ণ এই গ্রহের বায়ুমন্ডল। অত্যধিক উষ্ণ এর বায়ুমন্ডল (hot super-Earth)। এই গ্রহে বিভিন্ন গ্যাসের সমাহারে তৈরি। Gliese 486b গ্রহটি নিজেদের সৌরজগতের মূল নক্ষত্রকে দেড়দিনে একবার প্রদক্ষিণ করে, এতটাই কাছে অবস্থিত এটি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।