কলকাতা: সুনীল নারিনকে নিয়ে কলকাতা নাইট রাইডার্সের সমস্যা অব্যাহত৷গৌতম গম্ভীরের দলের এক নম্বর স্পিনারকে আইসিসি খেলার ছাড়পত্র দিলেও, তাঁকে আরও কয়েক দফা বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা দিতে হবে আইসিসির-চেন্নাই বোলিং টেস্টিং সেন্টারে ( শ্রী রামচন্দ্র ইউনিভার্সিটি)৷বুধবার এমনটাই জানালেন বিসিসিআই ও সিএবি প্রেসিডেন্ট জগমোহন ডালমিয়া৷তিনি বলছেন,‘ আমি কেকেআর ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে কথা বলেছি নারিনের ব্যাপারে৷ওরা জানিয়েছে যে নারিনকে আরও এক বা দু’বার বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষায় বসতে হবে৷’

২০১৪-এ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ টি-২০ খেলাকালীনই সন্দেহজনক বোলিং অ্যাকশনের জন্য নারিনকে সাসপেন্ড করে আইসিসি৷এমনকী, চেন্নাই সুপার কিংসের বিরুদ্ধে ফাইনালেও খেলা হয়নি তাঁর৷আট উইকেটে ম্যাচ জিতে ট্রফি তুলে নেয় চেন্নাই৷এমনকী, নারিন সদ্যসমাপ্ত বিশ্বকাপেও খেলতে পারেননি৷ নারিনকে পেতে একপ্রকার মরিয়া কেকেআর-এর অধিপতি গম্ভীর৷আর ঠিক সাতদিন পরেই মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে আইপিএল এইট-এর প্রথম ম্যাচ খেলবেন গম্ভীররা৷নারিনকে দ্রুত সম্ভব চেন্নাইতে আনানোর চেষ্টা করছে কেকেআর৷এখন দেখার প্রথম ম্যাচে নারিনকে দলে পাওয়া যায় কি না৷

১৯৮৯-৯০ সালে  দিল্লিকে হারিয়ে শেষবার রঞ্জি জয়ের স্বাদ পেয়েছিল সম্বরণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বঙ্গ-ব্রিগেড৷রঞ্জি জয়ের ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে বুধবার ইডেনে সিএবি-র পক্ষ থেকে বাংলার সেই বিজয়ী দলকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়৷ ক্ষুদিরাম অনুশীলন কেন্দ্রে এই অনুষ্ঠানে প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক এবং বর্তমানে সিএবি-র যুগ্ম-সচিব সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় যেমন উপস্থিত ছিলেন৷ তেমনি সেই দলের অধিনায়ক সম্বরণ বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ উপস্থিত ছিলেন চ্যাম্পিয়ন দলের অন্যান্য সদস্যরা৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।