কলকাতা: দলের কর্মীদের কেন্দ্রীয় বাহিনীকে আক্রমণ করার নির্দেশ, তৃণমূলের মন্ত্রীর কাণ্ড দেখে তাজ্জব নরেন্দ্র মোদী৷ কিছুদিন আগেই রাজ্যের এক মন্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল যে তিনি দলীয় সভায় কর্মীদের দরকার পড়লে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঝাঁটা পেটা করার নির্দেশ দিয়েছিলেন৷ রাজ্যে মন্ত্রী রত্না কর ঘোষ নদিয়া জেলার বিধায়ক৷ তার বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিতর্ক কম হয়নি৷

মঙ্গলবার আসানসোলের নির্বাচনী জনসভায় ওই ঘটনার উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, তৃণমূল কংগ্রেস সরকার ভোট লুঠ করতে নিজেদের কর্মীদের কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপর আক্রমণ করার কথা বলছে৷ এখন দিদি (মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়) আর কাজ কী? নির্বাচন কমিশনকে ধমকি দেওয়া এবং মোদীকে গালাগাল করা৷ ওই ‘স্পিডব্রেকার’দিদির সময় শেষ হয়ে গিয়েছে৷ প্রসঙ্গত রাজ্যের ওই মন্ত্রী কর্মী সভায় যা বলেছিলেন, সেই ভিডিও রীতিমতো ভাইরাল হয়ে যায়৷ বিজেপির পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনকে অভিযোগ করা হয়৷

এদিন শুরু থেকেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে আক্রমণত্মক ছিলেন মোদী৷ প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলায় মমতা দিদি যা করেছেন, সেই কাজের জন্য এই পৃথিবীর ইতিহাস তাকে ক্ষমা করবে না৷ মা মাটি মানুষের নামে জনতাকে ধোকা দিয়েছেন দিদি৷ সারদা-নারদা-রোজভ্যালি শুধু মাত্র কেলেঙ্কারি নয়৷ ওইগুলি গরীবের বিরুদ্ধে সংগঠিত অপরাধ৷ প্রসঙ্গত কিছুদিন আগেই বালুরঘাটের জনসভায় মোদী বলেছিলেন, তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিনতে ভুল করেছিলেন৷ বাংলার মানুষ অনেক আশা করে কমিউনিস্টদের হাত থেকে বাঁচতে ক্ষমতায় এনেছিল মমতা দিদিকে৷ বাংলার জনতা যে ভুল করেছিল, তিনিও সেই আমিও করেছিলেন৷ তখন ওকে দেখে মমতা দিদিকে সততার মুর্তি মনে হতো৷ মনে হতো, উনি বাংলার জনতার রক্ষাকর্তা৷

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর দিদিকে দেখে লজ্জায় আমার মাথা নিচু হয়ে গেল৷ যদি প্রধানমন্ত্রী ভুল করতে পারে তবে বাংলার জনতা তো ভুল করবেই৷ ২৪ এপ্রিল রাণাঘাটে ফের সভা করবেন মোদী৷ মুখ্যমন্ত্রীর উপর বাক্যবাণ যে আরও বর্ষিত হবে, তা বলাই বাহুল্য৷

আসানসোলে সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র পভে প্রচার করতে এসে মোদী বলেছেন, এবারে বাংলায় বড় কিছু হবে৷ পশ্চিমবঙ্গের মানুষ ঠিক করে ফেলেছে কী করতে হবে৷ গুন্ডাগিরি, জনগণের পয়সা লুঠ করলে কী হয় ‘স্পিডব্রেকার দিদি’ তা বুধতে পারবেন ২৩ মে – এক পরে৷ মা-বোন-ভাইরা তৃণমূলের উচিত শিক্ষা দেবেন৷ বাংলায় প্রথম ও দ্বিতীয় দফার যা ভোট হয়েছে – তাতে ‘স্পিডব্রেকার দিদি’র ঘুম উড়ে গিয়েছে৷ ভোটারদের মোদী প্রশ্ন, বাংলায় কী ওই ধমক, লুঠ চলতেই থাকবে? বাংলার জনতা স্পিডব্রেকার দিদিকে কড়া সাজা দেবেন না? বাংলার শহর, গ্রাম থেকে, মোহল্লা, গলি থেকে, বুথে বুথে জনতা ‘স্পিডব্রেকার দিদি’কে সাজা দেবে৷ বাংলায় নারদা, সারদা, রোজভ্যালি হয়েছে৷ দূর্নীতিপরায়ণদের মন্ত্রী করেছেন দিদি৷ তাদের জন্য ধর্ণাতেও বসেছেন দিদি৷ এই চৌকিদার বাংলায় জগাই মাধাই চিটফান্ডের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে৷ কেউ পার পাবে না – সাফ কথা মোদীর৷ মোদীর ফের প্রশ্ন, পাকিস্তানে কত জঙ্গি মারা গিয়েছে তার হিসাব চেয়েছেন মোদী৷ কিন্তু সারদা-রোজভ্যালিতে গরীবেব কত টাকা লুঠ হয়েছে সেই হিসাব দিয়েছেন দিদি?