কলকাতা: ষষ্ঠীর সকালে সল্টলেকের EZCC-এর দুর্গাপুজোর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভার্চুয়ালি পুজোর উদ্বোধন সেরে যথেষ্ট উচ্ছ্বসিত স্বয়ং প্রধনমন্ত্রীও। এদিন বেলা ১২টা নাগাদ ভার্চুয়লি পুজোর উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘‘বাংলার পবিত্রভূমিকে প্রণাম জানাই। উৎসবের এই উচ্ছ্বাস ও আবেগ বাংলার পরিচয়।’’

বৃহস্পতিবার বেলা ১২টায় সল্টলেকের EZCC-এর দুর্গাপুজোর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এই প্রথম বাংলার শ্রেষ্ঠ উৎসবে সরাসরি শরিক হলেন মোদী। ভার্চুয়ালি এদিন পুজোর উদ্বোধন সেরেছেন প্রধানমন্ত্রী।

ষষ্ঠীর সকালে বাংলার দুর্গাপুজোর উদ্বোধন সেরে মোদী নিজেও যথেষ্ট উৎসাহিত। প্রশংসায় ভরিয়ে দিলেন বাংলাকে। পুজোর উদ্বোধন সেরে তিনি বলেন, ‘‘এখানকার উৎসাহ ও উচ্ছ্বাস দেখে মনে হচ্ছে এখন আমি দিল্লিতে নেই, কলকাতায় আপনাদের সঙ্গে রয়েছি।’’

শারোদোৎসবের আবহে রাজ্যবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘‘উৎসবের এই উচ্ছ্বাস ও আবেগ বাংলার পরিচয়। বাংলার পবিত্রভূমিকে প্রণাম জানাচ্ছি। সবাইকে দুর্গাপুজো ও দীপাবলির শুভেচ্ছা জানাই।’’

এরই পাশাপাশি এদিন গোটা বাঙালি সমাজেরও ভূয়সী প্রশংসা শোনা গিয়েছে প্রধনমন্ত্রীর গলায়। তিনি বলেন, ‘‘দেশকে পথ দেখায় বাংলা। বাঙালিরা এদেশের গৌরব।’’

করোনা এখনও চোখ রাঙাচ্ছে গোটা দেশে৷ এরাজ্যেও পরিস্থিতি ক্রমেই বিপজ্জনক রূপ নিচ্ছে। এদিন পুজোর উদ্বোধন সেরে সকলকে করোনার সংক্রমণ এড়াতে কোভিড প্রোটোকল মেনে চলারও পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘‘উৎসবের এই দিনগুলিতে প্রত্যেকে মাস্ক পরুন। করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে সামাজিক দূরতব মেনে চলুন।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।