দ্য হেগ: একদিকে পুলওয়ামা হামলার পর ভারত-পাকিস্তানের সম্পর্ক নতুন করে অবনতির দিকে যাচ্ছে। এরই মধ্যে আন্তর্জাতিক আদালতে কুলভূষণ যাদবের মামলায় মুখোমুখি হল ভারত-পাকিস্তান। সেখানেই করমর্দন না করে পাক অফিসারকে জবাব দিলেন ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের যুগ্ম সচিব দীপক মিত্তল।

বর্তমানে পাকিস্তানে বন্দি হয়ে আছেন ভারতের প্রাক্তন নৌসেনা অফিসার কুলভূষণ যাদব। তাঁর ফাঁসির রায়ও দিয়েছে পাকিস্তানের আদালত। সোমবার ছিল International Court of Justice-এ ছিল সেই মামলার শুনানি।

সেখানে শুনানি শুরুর আগে সৌজন্যের খাতিরে দীপক মিত্তলের দিকে হাত বাড়িয়ে দেন পাকিস্তানের অ্যাটর্নি জেনারেল মনসুর খান। কিন্তু হ্যান্ডশেক না করে উঠে দাঁড়িয়ে নমস্কার করেন দীপক মিত্তল।

এর আগেও একই ছবি দেখা গিয়েছিল এই আদালতে। ২০১৭-তেও পাকিস্তানকে শুকনো নমস্কার করেছিলেন ভারতের কূটনীতিক।

আরও পড়ুন: প্রতিশোধ! পাকিস্তানের মাটিতে সবথেকে বড় সাইবার হামলা চালাল ভারত

দ্য হেগ-এর আন্তর্জাতিক ন্যায় আদালতে চারদিন ধরে চলবে মামলার শুনানি৷ এরই মধ্যে আদালতে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরবে নয়াদিল্লি ও ইসলামাবাদ৷ সোমবার ছিল শুনানির প্রথম দিন৷ এদিন আদালতে নিজেদের পক্ষের বক্তব্য জানিয়েছে ভারত৷ মঙ্গলবার পাকিস্তান বলবে তাদের কথা৷ কুলভূষণ নিয়ে দুই দেশের বক্তব্য পেশের মধ্যে দিনে শেষ হবে প্রথম পর্যায়ের শুনানি৷ পরবর্তী শুনানি চলতি মাসের ২১ ও ২২ তারিখ৷

কুলভূষণ যাদব ভারতীয় নৌসেনার প্রাক্তন অফিসার৷ পাকিস্তানের দাবি, কূলভূষণ ভারতীয় গুপ্তচর৷ র-এর এজেন্ট হয়ে কাজ করতেন৷ এই অভিযোগে পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই তাকে অপহরণ করে ইরান থেকে। পরে তাকে গ্রেফতারও করা হয়৷

আরও পড়ুন: ১৭ ঘণ্টার এনকাউন্টারে খতম তৃতীয় জইশ জঙ্গি

এরপরই কুলভূষণকে কূটনৈতিক সহায়তা দিচ্ছে নয়াদিল্লি। যদিও পাকিস্তান সেই প্রস্তাব খারিজ করে দিচ্ছে। ২০১৭ সালের এপ্রিলেই পাকিস্তানের সৈন্য আদালত কূলভূষণকে ফাঁসির সাজা শোনায়৷ সেই বছরের মে মাসেই আন্তর্জাতিক আদালতে তার মৃত্যুদণ্ড রদের আবেদন করে ভারত৷

পাকিস্তান যদি ফাঁসির সাজার কারণ ব্যাখ্যা করতে না পারে তাহলে সেটিকে আন্তর্জাতিক আইনের অবমাননার সামিল৷ ২০১৭ সালের ১৮ই মে আন্তর্জাতিক আদালত পাকিস্তানকে কূলভূষণের ফাঁসি কার্যকরে স্থগিতাদেশ জারি করে৷ মাঝে আন্তর্জাতিক আদালতের নির্দেশেই কুলভূষণের মা ও স্ত্রী তাঁর সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পান৷