ইংল্যান্ড ৪৭৭ ও ১২/০

ভারত ৭৫৯/৭ (নায়ার ৩০৩*, রাহুল ১৯৯)

দিনের শেষে ২৭০ রানে এগিয়ে ভারত

চেন্নাই: চিপকে নজির গড়লেন করুন কালাধরন নায়ার৷ সাফল্য তাঁর কদম ছুঁয়েছে৷ কেরিয়ারের তৃতীয় টেস্টেই ট্রিপল সেঞ্চুরি করে নজির গড়লেন নায়ার৷ সোমবার চিপকে ইংরেজ বোলিংকে ‘খুন’ করে প্রথমে সেঞ্চুরি ও পরে  ডাবল সেঞ্চুরি এবং তার পর ট্রিপল সেঞ্চুরি করে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন টিম ইন্ডিয়ার এই মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যান৷ সেই সঙ্গে গ্যারি সোবার্সকে ছুঁলেন নায়ার৷ সোবার্স ও ববি সিম্পসনের পর বিশ্বের তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম সেঞ্চুরিটাই ট্রিপল করলেন কর্নাটকের এই ডানহাতি৷

বীরেন্দ্র সেহওয়াগের পর দ্বিতীয় ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে ট্রিপল সেঞ্চুরির নজির গড়লেন নায়ার৷ ঘটনাচক্রে এই চিপকেই ২০০৮-এ দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে কেরিয়ারে দ্বিতীয় ট্রিপল সেঞ্চুরিটি করেছিলেন সেহওয়াগ৷ এখানেই সোমবার ট্রিপল সেঞ্চুরির স্বাদ পেলেন নায়ার৷ ৩০৩ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি৷ ৩৮১ বলে ৩২টি বাউন্ডারি ও চারটি ওভার বাউন্ডারি মারেন নায়ার৷ তাঁর ট্রিপল সেঞ্চুরির পরই সাত উইকেটে ৭৫৯ রানে ইনিংস ডিক্লেয়ার্ড করে ভারত৷ টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে এটাই ভারতের সর্বোচ্চ রান৷ এর আগে ২০০৯-এ মুম্বইয়ে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ৯ উইকেটে ৭২৬ রান ছিল ভারতের সর্বোচ্চ স্কোর৷ ইংল্যান্ডের থেকে ২৮২ রানে এগিয়ে বিরাটবাহিনী৷ চতুর্থ দিনের শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে বিনা উইকেটে ১২ রান তুলেছে ইংল্যান্ড৷ এখনও ২৭০ রানে পিছিয়ে কুকবাহিনী৷ মঙ্গলবার ম্যাচের শেষ দিনের সকালে বিরাটরা দ্রুত কয়েকটি উইকেট তুলে নিতে পারলে সিরিজ ৩-০ করতে পারে ভারত৷

 

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.