স্টাফ রিপোর্টার,বারাকপুর: মিশন নির্মল বাংলা প্রকল্পকে মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিলে তবেই তার স্বার্থকতা মিলবে। রাজ্যকে সবুজ ও প্লাস্টিক মুক্ত গড়তে সর্বক্ষণই রাজ্যবাসীর উদ্দেশ্যে বার্তা দেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজকের সবুজায়ন ভবিষ্যৎের সংরক্ষণ। এই বার্তাকেই পাথেয় করে স্বচ্ছ ও প্লাস্টিক মুক্ত অঞ্চল গড়তে অভিনব পদক্ষেপ গ্রহণ করল নৈহাটি পুরসভা।

জানা গিয়েছে, নৈহাটি পুরসভার পক্ষ থেকে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশ মেনে নৈহাটি এলাকাকে স্বচ্ছ ও প্লাস্টিক মুক্ত করার জন্য উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। এদিন নৈহাটি এলাকার মাদরাল রোডের ৫ নম্বর বাজারে পুরসভার পক্ষ থেকে বিতরণ করা হল পাটের তৈরি ব্যাগ। নির্মল বাংলা মিশন এর অন্তর্গত মানুষকে, প্লাস্টিক বর্জন করার আবেদন জানিয়ে বাজারে এই ধরনের ব্যাগ বিতরণ করা হয় গ্রাহক ও বিক্রেতাদের মধ্যে।

এদিনের চটের ব্যাগ বিতরণ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন নৈহাটি পুরসভার পুরপারিষদ সনৎ দে। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন নৈহাটি পুরসভার অন্যান্য কর্মীরা। এদিনের পুরসভার কর্মীদের তরফে সাধারণ মানুষের হাতে চটের ব্যাগ তুলে দেওয়া হয় এবং তাঁদেরকে প্লাস্টিক মুক্ত নৈহাটি গড়ার জন্য প্লাস্টিকের ব্যাগ বা প্লাস্টিক জাতীয় কোনও কিছুই ব্যবহার না করার আবেদন জানান পুর কর্মীরা।

এই বিষয়ে নৈহাটি পুরসভার পুর পারিষদ সনৎ দে বলেন, “জন সচেতনতা বৃদ্ধি করতে প্লাস্টিক মুক্ত সমাজ গড়তে নৈহাটি পুরসভার পক্ষ থেকে আগামীদিনে এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।