নাগপুর : ফের গোমাংস নিয়ে অশান্তির সৃষ্টি হল। এবারে নাগপুরে স্কুটারের ডিকিতে গোমাংস নিয়ে যাওয়ার সন্দেহে এক ব্যক্তিকে স্থানীয় জনতা রাস্তায় ফেলে পেটাল। স্কুটার থেকে পাওয়া মাংস পরীক্ষার জন্যও পাঠিয়েছে পুলিশ।

ঘটনা ঘটেছে নাগপুরের ভারসিঙ্গি গ্রামে। প্রহৃতের নাম সেলিম ইসমাইল শাহ। অভিযোগ, পেশায় সব্জি ব্যবসায়ী সেলিম, স্কুটারের ডিকিতে গোমাংস নিয়ে যাচ্ছিলেন। ভারসিঙ্গি বাস স্টপের কাছে স্থানীয় মানুষ তাঁকে ঘিরে ফেলে, স্কুটার থেকে নামিয়ে বেধড়ক মারধর করে। সেলিম বারবার বলেছিলেন, তাঁর কাছে গোমাংস নেই। মারধরে বেহুঁশ হয়ে যান তিনি। ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে তাঁকে উদ্ধার করে। ওই দুষ্কৃতীদের স্থানীয় ‘প্রহার সংগঠন’–এর সদস্য বলে চিহ্নিত করা গিয়েছে। এলাকার বিধায়ক বাচ্চু কাদুর ঘনিষ্ঠ তারা। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ৪ জনকে আটক করেছে নাগপুর পুলিশ। তদন্তও শুরু করেছেন তাঁরা।

গোরক্ষকদের হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তারপরেও ক্রমাগত দেশ জুড়ে বেড়ে চলেছে স্বঘোষিত গোরক্ষকরদের তাণ্ডব। প্রধানমন্ত্রীর কথায় যে কোনও কাজই হয়নি নাগপুরের ঘটনা তার প্রমাণ। সম্প্রতি ইদের সময় দিল্লি থেকে হরিয়ানার বল্লভগড় একই পরিবারের বেশ কয়েকজন যুবক। গোমাংস নিয়ে যাওয়ার অপরাধে ট্রেনেই মধ্যেই তাদের ওপর চড়াও হয় একদল দুষ্কৃতী। জুনেইদ নামের এক কিশোরকে পিটিয়ে খুন করা হয়। তার দিন কয়েক পরই ঝাড়খণ্ডের গিরিডিতে একই ঘটনা ঘটে। এখানে আক্রান্ত এক প্রৌঢ়।