কোহিমা: আলাদা রাজ্য তকমা পাওয়ার পর কেটে গিয়েছে ৫৪ বছর৷ রাজ্য পার করে এসেছে ১২টি বিধানসভা নির্বাচন৷ এখনও বিধানসভা চত্ত্বরে পা পড়েনি কোনও মহিলা জনপ্রতিনিধির৷ নাগাল্যান্ড বিধানসভার ছবিটা এখনও এরকমই মহিলাবিহীন৷ আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারী ৬০ সদস্য বিশিষ্ট নাগাল্যান্ড বিধানসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ হবে৷ ফলাফল ৩ মার্চ ৷

বিধানসভার ৬০টি আসন দখলে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছে ১৯৫ জন প্রার্থী ৷ তার মধ্যে মহিলা প্রার্থীর সংখ্যা মাত্র ৫৷ এদের মধ্যে ডিমাপুর-III ও নোকসেন বিধানসভা কেন্দ্র থেকে ন্যাশনাল পিপল পার্টির টিকিটে লড়ছেন ওয়েডি-ইউ ক্রোনু এবং মানজ্ঞানপুলা ৷ তুয়েনসাঙ সর্দার-II কেন্দ্র থেকে বিজেপি প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছেন রাখিলা ৷

ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক প্রোগ্রেসিভ পার্টির হয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন আরেক মহিলা প্রার্থী আওয়ান কোনইয়াক ৷ তিনি আবোই কেন্দ্রের প্রার্থী ৷ শিজামি কেন্দ্র থেকে নির্দল প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছেন রেখা রোজ ডুকরু ৷ ক্ষমতায় থাকা নাগা পিপল ফ্রন্ট কোনও মহিলা প্রার্থীকে ভোটে দাঁড় করায়নি৷ নাগা পিপল ফ্রন্টের প্রধান শুরহোযেলি লাইজিয়েতসু জানিয়েছেন, তাদের পার্টির কোনও মহিলা সদস্যই ভোটে লড়তে আগ্রহী নন ৷

জিতলে কাজ করবেন মানুষের জন্য, প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন রাখিলা৷ সময়টা নারীর ক্ষমতায়নের৷ তাই রাজনীতিতেও মহিলাদের এগিয়ে আসা উচিত বলে মনে করেন তিনি৷ তাতে ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ ঘটবে৷ রাজনীতি নিজের কালিমা মুছতে পারে৷ তবে মহিলাদের রাজনীতিতে অংশগ্রহণ বেড়েছে, এটাই তাঁকে আশাবাদী করছে বলে জানালেন মুখ্য নির্বাচনী, আধিকারি৷ কারণ গত নির্বাচন দুটিতে মেয়েদের অংশগ্রহণ ছিল দুই৷

রাখিলা ছাড়া বাকি চারজনই ভোটের ময়দানে নতুন৷ ৫৪ বছর পর কি নাগাল্যান্ডে তৈরি হবে নয়া ইতিহাস? উত্তর মিলবে কিছুদিনের মধ্যেই ৷