ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তারপর থেকেই বিভিন্ন জেলায় ‘কাটমানি’ উদ্ধারে বিক্ষোভের ঢল গ্রামবাসীদের৷ নাজেহাল অবস্থা শাসক দল তৃণমূলের৷

এর আগে ‘কাটমানি’ উদ্ধারে অভিযোগ জানাতে নির্দিষ্ট মোবাইল নম্বর দেওয়া হয়েছিল৷ এবার আরও কড়া পদক্ষেপর নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ প্রত্যেক জেলার পুলিশ সুপারদের ‘কাটমানি’ সংক্রান্ত অভিযোগ এলে গুরুত্বসহকারে শোনার কথা বলা হয়েছে৷ অভিযোগের সত্যতা থাকলে জনপ্রতিনিধি বা সরকারি কর্মচারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে পুলিশকে৷

আরও পড়ুন: ভাটপাড়া গুলিকাণ্ডে অভিযুক্ত পুলিশদের লোকসভায় কৈফিয়ৎ তলব করা হবে: অর্জুন সিং

নবান্নে সোমবার পুলিসের অতিরিক্ত ডিজি (আইন-শৃঙ্খলা) জ্ঞানবন্ত সিং জানিয়েছেন, ‘কাটমানি’ সংক্রান্ত অভিযোগের উপযুক্ত তথ্য প্রমাণ থাকলে সরাকারি কর্মী বা জনপ্রতিনিধির বিরুদ্ধে ৪০৯ ধারায় মামলা করা যাবে৷ অভিযোগ প্রমাণিত হলে দোষীদের কারদণ্ড পর্যন্ত হবে৷

নজরুল মঞ্চ থেকে দলের জনপ্রতিনিধিদের ‘কাটমানি’ নেওয়ার বিরুদ্ধে সোচ্চার হন মুখ্যমন্ত্রী৷ তৃণমূলের কেই তা নিয়ে তাকলে ফেরৎ দেওয়ার কথাও বলেন তিনি৷ তারপর থেকেই রাজ্যজুড়ে ত্রাহি ত্রাহি রব৷ বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূল জনপ্রতিনিধিদের বাড়ি ঘেরাও শুরু হয়েছে৷

আরও পড়ুন: ‘কাটমানি’ উদ্ধারে ভুক্তভোগীদের আইনি সাহায্য বিজেপির

বিজেপি সেই ঘেরাও আম্দোলনকে উসকে দিতে আসরে নেমেছে৷ বিজেপির যুব মোর্চার উদ্যোগে অসহায় মানুষগুলিকে আইনি সাহায্য দেওয়া হবে৷ মঙ্গলবার থেকেই শুরু হবে পদ্ম শিবিরের এই কর্মসূচি৷ কারা কারা ‘কাটমানি’ নেওয়ায় অভিযুক্ত, ভুক্তভোগীই বা কারা? বিজেপি সূত্রে খবর, এই সব নির্ধারণের কাজই শুরু হবে আগামীকাল থেকে৷

তাই এই ইস্যুতে বিরোধীদের ফায়দা তুলতে দিতে নারাজ জোড়াফুল শিবির৷ তাই দোষীদের প্রশাসনের মাধ্যমে শাস্তির বিধান করেই কড়া জাবব দিতে চান তিনি৷ বিধানসভার আগে এতে এক ঢিলে দুই পাখি মারা যাবে বলে মনে করছে শাসক দল৷ প্রথম, দক্ষ, নিরপেক্ষ প্রশাসকের ছবি তুলে ধরা যাবে৷ দ্বিতীয়ত, দলের দুর্নীতিবাজ নেতা, কর্মীদের বিরুদ্ধেও বার্তা পৌঁছে দেওয়া সহজ হবে৷