স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: মধ্যবয়স্কা এক গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল উত্তর ২৪ পরগণার বেলঘরিয়া থানার বান্ধব নগর এলাকায়৷ মৃত ওই গৃহবধূর নাম মধুছন্দা সাহা (৫৩)৷ মধুছন্দা দেবীর মৃত দেহ তার বাড়ির কুয়োর মধ্যে থেকে উদ্ধার হয়। মৃতের শ্বশুর বাড়ির আত্মীয়দের দাবি মধুছন্দা দেবী বাড়ির কুয়োয় ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

মৃতের পরিবারের আত্মীয়রা কুয়োতে ওই গৃহবধূর দেহ ভাসতে দেখেন। তারাই খবর দেন বেলঘরিয়া থানায়৷ পুলিশ এসে দেহ উদ্ধারের জন্য খবর দেয় দমকল কর্মীদের। ২ ঘণ্টার চেষ্টায় ওই মধ্যবয়স্কা মহিলার মৃতদেহ কুয়ো থেকে উদ্ধার করে দমকলকর্মীরা। বেলঘরিয়া থানার পুলিশ ওই মৃতদেহটিকে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠিয়েছে।

আরও পড়ুন- নাট্য উৎকর্ষ কেন্দ্রের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাদ নাটকের বিশিষ্টজনরা

মৃতের পরিবার সূত্রের জানা গিয়েছে, মধুছন্দা দেবী শুক্রবার রাতে অন্যান্য দিনের মতই খাওয়া দাওয়ার পর একমাত্র মেয়ের সঙ্গেই ঘুমিয়ে ছিলেন। তবে কখন তিনি মেয়ের কাছ থেকে উঠে যান তা টের পায়নি তাঁর মেয়ে৷ পেশায় জুনিয়ার ডাক্তার ওই যুবতী জানিয়েছেন, তার মা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ভয় পেতেন। তবে কি নিয়ে ভয় পেতেন তা তাদের জানতে দেননি। সেই ভয় থেকেই কি তাঁর মা এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা তিনি বলতে পারেনি৷

পেশায় রাজ্য বিদ্যুৎ পর্ষদের কর্মী মৃতের স্বামী দিলীপ সাহা বলেন, ‘আমি অন্যান্য দিনের মতই খাওয়া দাওয়া করে নিজের ঘরে ঘুমোতে যাই। আমার স্ত্রী মেয়ের সঙ্গে ঘুমিয়ে ছিল। সকালে ঘুম থেকে উঠেই জানতে পারি আমার স্ত্রীর মৃতদেহ বাড়ির কুয়োয় ভাসছে। সম্প্রতি মধুছন্দা মানসিকভাবে অসুস্থ ছিল। তবে এই রকম একটা কাণ্ড ঘটাবে বুঝতে পারিনি।’

এলাকার প্রতিবেশীরা ওই গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় বেলঘরিয়া থানার পুলিশের কাছে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। বেলঘরিয়া থানার পুলিশ মৃতের পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করছে। এই ঘটনায় এখনও কেউ গ্রেফতার হয়নি।