আলিপুরদুয়ার: বুধবার থেকে গত ২৪ ঘণ্টায় পরপর ২টি গন্ডারের মৃত্যুতে কপালে চিন্তার ভাঁজ বনদফতরের। দুটি গন্ডারের মৃত্যু এবং বৃহস্পতিবার থেকে আরও ১টি গণ্ডার অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এই ঘটনায় গন্ডারের আবাসভূমি জলদাপাড়া অভয়ারণ্যে ছড়িয়ে পড়েছে অ্যানথ্রাক্সের আতঙ্ক। ঘটনার জেরে দেশের জাতীয় এই উদ্যান থেকে গন্ডার বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে বন দফতরের কর্তাদের। বিষয়টির প্রতি গুরুত্ব দিয়ে উচ্চপর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন স্বয়ং বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়।

জানা গিয়েছে, পরপর এই গন্ডারের মৃত্যুর ঘটনায় জাতীয় উদ্যানে অ্যানথ্রাক্সের আশঙ্কা ছড়িয়েছে। যদিও, বনদফতর কর্তৃপক্ষ এখনই এই বিষয়টিকে অ্যানথ্রাক্সের সংক্রমণের মানতে নারাজ। তবে সমস্ত দিকটি মাথায় রেখে, বনদফতর তিনটি গন্ডারের রক্তের নমুনা জরুরি ভিত্তিতে কলকাতার বেলগাছিয়ায় পরীক্ষাগারে পাঠিয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বনমন্ত্রী বলেন, ”কি কারণে জলদাপাড়ায় এইভাবে পরপর গন্ডারের মৃত্যু হচ্ছে তা তদন্ত করে দেখতে দফতরের অফিসারদের নির্দেশ দিয়েছি। তদন্তের আগে নিশ্চিত করে বলা যাবে না কিভাবে গন্ডারগুলির মৃত্যু হয়েছে।”

এই বিষয়ে রাজ্যের প্রধান মুখ্য বনপাল রবিকান্ত সিনহা বলেন, ”জলদাপাড়ায় গন্ডার মৃত্যুর পিছনে অ্যানথ্রাক্সের আশঙ্কা রয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মৃত গন্ডারগুলির রক্তের নমুনা কলকাতায় পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে। রক্তের নমুনার রিপোর্ট পাওয়ার পরই গন্ডার মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।”

এদিকে গত বুধবার ২টি গন্ডারের মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছিল জলদাপাড়ায়। বৃহস্পতিবার সকালে আরও ১টি মুমূর্ষু গন্ডারকে উদ্ধার করা হয়। বুধবার সকালে উদ্ধার হওয়া গন্ডার ২টির মধ্যে ১’টির সঙ্গে ছিল আনুমানিক আড়াই মাসের একটি শাবক। এদিনের ধুঁকতে থাকা গন্ডারটির সঙ্গেও রয়েছে একরত্তি শাবক। প্রাথমিক অনুমানে অ্যানথ্রাক্সের আশঙ্কা মনে করা হলেও, মৃত্যুর আসল কারণ ফরেন্সিক পরীক্ষার পরই হাতে আসবে বলে মনে করছে বন বিভাগ।

এদিকে গন্ডারের এই প্রধান বাসভূমি জলদাপাড়ার জাতীয় উদ্যানে এই মুহূর্তে রয়েছে ২৫০’রও বেশি গন্ডার। জাতীয় উদ্যানে পরপর গন্ডারের মৃত্যু ও অসুস্থ হওয়ার ঘটনায় বনদফতরের অফিসারদের কার্যত রাতের ঘুম ছুটে গিয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে রাজ্যের বন্যপ্রাণ শাখার উত্তরবঙ্গের প্রধান মুখ্য বনপাল উজ্জ্বল ঘোষ বলেন, ”বাইরে থেকে চারজন পশু চিকিৎসক আনা হয়েছে। মেডিক্যাল বোর্ড তৈরি করে অসুস্থ স্ত্রী গন্ডারটির চিকিৎসা চলছে।”

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও