বাসুদেব ঘোষ, সিউড়ি: রাত হলেই ব্রহ্মদৈত্য নাকি ঢিল ছোড়েন, তাই সন্ধ্যার আগেই বেচাকেনার পাট চুকিয়ে দিতে হয় মেলাতে পসরা নিয়ে আসা দোকানিদের৷ দীর্ঘ প্রায় ২০০ বছর ধরে চলে আসছে বীরভূমের নগরী গ্রামের ব্রহ্মদৈত্যের মেলা৷ এটি মূলত গ্রাম্য মেলা৷ মেলাকে ঘিরে বহু মানুষের জমায়েত হয়৷

দূর-দূরান্ত আশেপাশের গ্রাম থেকে বহু মানুষ ছুটে আসেন ১লা মাঘ এই ব্রহ্মদৈত্যর মেলাতে৷ মেলাটি একদিনের জন্যই বসে৷ তবে কথিত আছে এই মেলাতে কোনও দোকানদার যদি সন্ধ্যার পর থাকেন তাহলে নাকি ব্রহ্মদৈত্য ঢিল ছোড়েন৷

সেই ভয়ে কোন দোকানদার সন্ধ্যার পর আর মেলাতে বসতে সাহস করেন না৷ তাই সন্ধ্যা নামার আগেই এই মেলা শেষ করে দেন দোকানদার থেকে মেলা কমিটি সকলেই৷ মেলা কমিটির পক্ষ থেকে মৃণাল মাল জানান, এটি প্রাচীন মেলা৷ এই মেলাকে ঘিরে আশেপাশের গ্রাম থেকে বহু মানুষ আসেন৷ তবে সন্ধ্যার পর এই মেলাতে আর কাউকে দেখা যায় না সেভাবে৷

কথিত আছে সন্ধ্যা নামলে মেলাতে যদি একটি দোকানদারও থাকেন, তাকে লক্ষ্য করে ঢিল ছোড়েন ব্রহ্মদৈত্য৷ তাই সন্ধ্যার মধ্যেই সমস্ত দোকানপাট গুটিয়ে মেলা শেষ করে দিতে হয়৷ মেলাতে মাটির হাঁড়ি নিয়ে আসা নকুল মাল জানান, সন্ধ্যার আগেই আমরা মেলা প্রাঙ্গণ ছেড়ে দিই৷

এভাবেই চলে আসছে বছরের পর বছর৷ যুগের পর যুগ৷ তবে দিন যত যাচ্ছে, এই ব্রহ্মদৈত্যের মেলার আকর্ষণ ক্রমশ বাড়ছে স্থানীয়দের কাছে৷