হাওড়া:শেষ হল শুভাঞ্জিতার ময়নাতদন্ত। প্রাথমিক রিপোর্টে পাকস্থলীতে অ্যালকোহল থাকার প্রমান মিলেছে বলে জানা গিয়েছে। অর্থাৎ শুভাঞ্জিতা যে মদ্যপ অবস্থায় ছিল, তা প্রমানিত হয়েছে। এদিকে, ইতিমধ্যেই থানায় ডেএক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে শুভাঞ্জিতার দুই বন্ধু অভিষেক ও প্রিয়াঙ্কাকে।

(সর্বশেষ আপডেট 06:14)

তরুণীর রহস্যমৃত্যুতে উঠে এল নতুন তথ্য। শুভঞ্জিতার পকেট থেকে মিলল ড্রাগ।ন পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, তাঁর পকেট থেকে নাইট্রোসেন-১০-এর একটি প্যাকেট। চারটি ওষুধের ওই প্যাকেটটিতে রয়েছে মাত্র একটি ওষুধ। বাকি তিনটি খেয়ে নেওয়া হয়েছে বলেই অনুমান।

(সর্বশেষ আপডেট 01:38)

এক তরুণীর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে দানা বাঁধল রহস্য। রবিবার রাতে হাওড়ার একটি রিসর্টের সুইমিং পুল থেকে উদ্ধার হল ওই তরুণীর দেহ। হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়। পার্টি চলাকালীন সুইমিং পুলে পড়ে কিভাবে তাঁর মৃত্যু হল তা নিয়েই তৈরি হয়ে রহস্য। দুই বন্ধুর জড়িত থাকার বিষয়ে সন্দেহ করছে মৃতার পরিবার। তাঁকে খুন করে পুলে ফেলে দেওয়া হয়েছে বলে পুলিশের প্রাথমিক অনুমান।
মৃত তরুণীর নাম শুভঞ্জিতা বসাক। রবিবার রাতে ফ্রেন্ডশিপ ডে’র পার্টিতে হাওড়ার একটি রিসর্টে যান তিনি। দুই বন্ধুর সঙ্গে তিনি সেখানে গিয়েছিলেন বলে জানা গিয়েছে। এরপরই সেখানকার সুইমিং পুল থেকে উদ্ধার হয় ওই তরুণীর দেহ। এসএসকেএম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। বর্তমানে তাঁর দেহ ময়নাতদন্তের জন্য এসএসকেএমে রাখা হয়েছে।
তরুণীর শ্বশুরবাড়ি বেলেঘাটায়। পড়াশোনার অজুহাতে বাড়ির বাইরে একটি হস্টেলে গিয়ে থাকতেন তিনি। সেখানে যাওয়ার পর থেকেই তাঁর জীবনযাপনে বেশ কিছু পরিবর্তন আসে বলে পরিবারের তরফ থেকে জানা গিয়েছে। প্রায়ই অনেক রাত অবধি পার্টি করতেন তিনি। মদ্যপানের অভ্যাসও ছিল। বাড়ির সঙ্গেও বিশেষ যোগাযোগ করতেন না শুভঞ্জিতা। হস্টেলের রুমমেটদের সঙ্গে মিশেই তাঁর এই পরিবর্তন আসে বলে দাবি শুভঞ্জিতার স্বামীর। রবিবার তাদের সঙ্গেই পার্টিতে যান ওই তরুণী। এরপর রাতে শুভঞ্জিতার দাদা তাঁর স্বামীকে ফোন করে মৃত্যুর খবর জানান। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।