ফাইল ছবি

লন্ডন: বলা হয় মোট সমুদ্রে যত রহস্য লুকিয়ে আছে, মানুষ এখন পর্যন্ত নাকি তার মাত্র ৫ থেকে ১০ শতাংশ জানতে পেরেছে। প্রায়ই সমুদ্রের নানান জীব সম্পর্কে এমন অনেক আকর্ষণীয় তথ্য আসে যা আমরা অনেক সময় কল্পনাও করতে পারি না। এবার তেমনই একটি খবর। প্রায়ই সমুদ্রের তীরে ভেসে আসে নানান প্রাণীর দেহ। কখনও ভেসে আসে ডলফিনের দেহ, কখনও বিশাল তিমি আবার কখনও বা মানুষ। কিন্তু সম্প্রতি ব্রিটেনের একটি সমুদ্র সৈকতে এমন একটি প্রাণীর মৃতদেহ হাজির হয়েছে, যা দেখে রীতিমতো ভয়ই পেয়েছেন সাধারণ মানুষ।

যারা ওই প্রাণীটি দেখছেন, তাঁরা প্রত্যেকেই বলছেন ওই মৃতদেহ থেকে আসছে এক বিকট গন্ধ। লিভারপুল ইকোর একটি রিপোর্ট জানাচ্ছে, ব্রিটিশ সৈকত আনসডালে ১৫ ফুট লম্বা একটি রহস্যময় প্রাণীর মৃতদেহ দেখা গিয়েছে। ২৯ জুলাই সমুদ্র সৈকতে এটিকে প্রথম দেখা যায় বলে জানিয়েছে তাঁরা।

প্রথম দেখতে পাওয়া ব্যক্তি জানিয়েছেন, ওই প্রাণীটি রীতিমতো অদ্ভূত দর্শন। তাঁর বক্তব্য অনুযায়ী ওই মৃতদেহ লম্বায় প্রায় ১৫ ফুট, সেটির ৪ টি পা আছে, যেগুলি দেখতে খানিকটা অদ্ভুত ধরনের। আবার এটির সারা শরীরে অসংখ্য হাড় রয়েছে বলেও দাবি জানিয়েছে সে।

ওই অদ্ভুত দর্শন জীবের ছবি শোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা হয়েছে। এরপরেই তা ব্যাপক ভাইরাল হয়ে যায়। সাধারণ মানুষ ঠিক আন্দাজ করতে পারছেন না, এটা ঠিক কী ধরনের প্রাণী, যার ৪ টি পা আবার ১৫ ফুট লম্বা!

দ্য সানের একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, স্টিফেন এলিফ নামে এই বিষয়ের এক উপদেষ্টা জানিয়েছেন, প্রাণীটির দেহ খারাপ ভাবে পচে গিয়েছে ও সেটি জল কাদায় মাখামাখি। তাই সেটিকে সনাক্তও করা যায়নি।

উল্লেখ্য, আগের মাসেই ইন্দোনেশিয়ার একটি সমুদ্র তীরে ভেসে এসেছিল একটি বিরাট নীলতিমি। এই বিশাল প্রাণীটি ছিল লম্বায় ৭৫ ফুট। পরীক্ষার পর বোঝা গিয়েছিল, ওই প্রাণীটি অন্য কোথাও মারা গিয়েছে তারপরে সেটি ভেসে ভেসে এসেছে এই সমুদ্র সৈকতে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।