আহমেদাবাদ: ভোপাল সেন্ট্রাল জেল থেকে পলাতক আট সিমি সদস্যকে এনকাউন্টারে নিকেশ করেছে ভোপাল পুলিশ৷ সিমি জঙ্গিদের কে কি সত্যিই এনকাউন্টারে মারা হয়েছে, নাকি পুরোটাই সাজানো ফেক এনকাউন্টার? সেই প্রশ্নকে সামনে এনেছে প্রকাশিত একাধিক ভিডিও ফুটেজ। এরই মধ্যে মৃত এক জঙ্গির মা অভিযোগ করেন যে তাঁর ছেলেকে ঠাণ্ডা মাথায় খুন করেছে ভোপাল পুলিশ৷

মৃত সিমি সদস্য মুজিব জামিল শেখের মা মুমতাজ শেখ জানিয়েছেন, পুলিশ তাঁর ছেলে ও বাকিদের পরিকল্পনা মাফিক ঠাণ্ডা মাথায় খুন করেছে৷ ২০০৮ সালে আহমেদাবাদ বিস্ফোরণের মামলায় মুজিবকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ৷ তারপরে তার স্থান হয়েছিল ভোপাল সেন্ট্রাল জেল৷ কিন্তু গত সোমবার জেল ভেঙে পালিয়ে যায় মুজিব ও তার সাত সঙ্গী৷ সেই দিনই তাদের গোপন ঘাঁটিতে অভিযান চালিয়ে এনকাউন্টারে হত্যা করে ভোপাল পুলিশ৷

মুজিবের মায়ের আরও দাবি যে, যেখানে তার ছেলেকে এনকাউন্টার করা হয়েছে সেখানকার গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা হয়েছে তাঁর৷ গ্রামবাসীরা তাঁকে জানিয়েছে যে, গাড়িতে করে এসে সিমি সদস্যদের সেখানে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল৷ গ্রামবাসীদের বলা হয়েছিল যে এরা জঙ্গি৷ এরপরেই একের পর এক গুলিতে ঝাঁঝরা করে দেওয়া হয়েছিল আট সিমি সদস্যকে৷ মুমতাজ শেখে জানিয়েছেন, তাঁর ছেলে ‘মুজাহিদিন’ নয়ে বরং ‘শহিদ’৷