কলকাতা: সোশাল মিডিয়ার দৌলতে বুয়েনস আইরেস থেকে কলকাতায় খবরটা আসতে বিশেষ সময় লাগেনি৷ আর তাই প্রিয় নায়কের প্রায়ণে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে দেরি করেনি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়৷ ফুটবলের রাজপুত্র দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনা ছিলেন প্রাক্তন ভারতীয় ক্রিকেট অধিনায়ক সৌরভের চাইল্ডউড ‘হিরো’৷

বুধবার বুয়েনস আইরেসে নিজের বাড়িতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান ফুটবলের কিংবদন্তি৷ মস্তিষ্কে রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ায় কারণে চলতি মাসের শুরুতে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল৷ সেখানে জরুরি ভিত্তিতে তাঁর মস্তিষ্কের অস্ত্রোপচার করা হয়েছিল৷ ১১ নভেম্বর তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয় হাসপাতাল থেকে৷ তারপর বাড়ি ফিরে আসেন ফুটবলের রাজপুত্র৷

মারাদোনার ফুটবলজীবন যেমন ঘটনাবহুল, তেমনই বিতর্কিত৷ ১৯৮৬ সালে মেক্সিকো বিশ্বকাপে তাঁর পায়ের জাদু মন্ত্রমুগ্ধ করেছিল ফুটবলবিশ্বকে৷ আর্জেন্তিনাকে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তাঁর নেতৃত্বে৷ চার বছর পর অর্থাৎ ১৯৯০-এ ইতালি বিশ্বকাপেও আর্জেন্তিনাকে ফাইনালে তুলেছিলেন মারাদোনা৷ কিন্তু সেবার বিশ্বচ্যাম্পিয়ন করাতে পারেননি৷

মারাদোনা বললেই ফুটবলপ্রমীদের মনে পড়ে ১৯৮৬ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে মারাদোনার দু’টি গোলের কথা৷ বিতর্কিত প্রথমটি গোলটি ‘হ্যান্ড অফ গড’ নামে পরিচিত৷ রি-প্লেতে দেখা গিয়েছিল মারাদোনার হাতে লেগে বল ইংল্যান্ডের জালে জড়িয়েছিল৷ পরে এই গোলকে ‘হ্যান্ড অফ গড’ বলে অ্যাখ্যা দিয়েছিলেন প্রাক্তন আর্জেন্তাইন অধিনায়ক৷ ম্যাচে তাঁর দ্বিতীয় গোলটি ছিল চোখজুড়নো৷ একের পর এক ফুটবলারকে কাটিয়ে গোল করেছিলেন ফুটবলের রাজপুত্র৷

আর্জেন্টিনার হয়ে ৯১টি ম্যাচে ৩৪টি গোল করেছেন৷ চারটি বিশ্বকাপে আর্জেন্তিনার প্রতিনিধিত্ব করেছেন৷ এর মধ্যে ১৯৮৬ দেশকে বিশ্বকাপ দিয়ে আর্জেন্তাইন ফুটবলের গৌরব গাঁথা রচনা করেছিলেন৷ ১৯৯০ ইতালি বিশ্বকাপেও দলকে ফাইনালে তুলতে বড় ভূমিকা নিয়েছিলেন দিয়েগো৷ তবে পশ্চিম জার্মানির কাছে পরাজয় স্বীকার করে দ্বিতীয় বিশ্বকাপ জেতা হয়নি মারদোনার৷ ১৯৯৪ সালে বিশ্বকাপেও তিনি আর্জেন্তিনাকে নেতৃত্ব ছিলেন৷ তবে এফিড্রিনের ওষুধ সেবনে ডোপ টেস্টে ব্যর্থ হওয়ায় দেশে ফিরতে হয়েছিল ফুটবলের রাজপুত্রকে৷

১৯৯৭ সালে ফুটবলকে বিদায় জানান মারাদোনা৷ শুরু করেন কোচিং৷ ২০০৮ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত আর্জেন্তিনার জাতীয় দলেরও কোচ ছিলেন তিনি৷ মৃত্যুর সময়ও তিনি ছিলেন আর্জেন্তিনার ঘরোয়া ক্লাব জিমনাসিয়া ডি লা প্লাটার কোচ৷ তাঁর প্রয়াণে শোকস্তব্ধ ফুটবলবিশ্ব৷কিংবদন্তি ফুটবলারকে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন ক্রিকেটঈশ্বর থেকে ফুটবল সম্রাট৷

খবর পাওয়ার পরই টুইটারে সৌরভ লেখেন, “My hero no more ..my mad genius rest in peace ..I watched football for you..”

প্রিয় বন্ধুর মৃত্যুর খবরের পর ফুটবল সম্রাট পেলে বলেন, “Certainly, one day we’ll kick a ball together in the sky above,”

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।