পাটনা ও নয়াদিল্লি: নির্বাচনে স্বচ্ছ প্রশাসন চালানোর দাবি করা মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার বিতর্কে জড়ালেন। জেডিইউ টিকিটে ভোটে লড়ছেন বিতর্কিত মুজফ্ফরপুর হোম ধর্ষণ কান্ডের অন্যতম অভিযুক্ত মঞ্জু বর্মা। তিনি নীতীশ কুমার সরকার থেকে বহিষ্কৃত প্রাক্তন মন্ত্রী।

একনজরে মুজফ্‌ফরপুর হোম কাণ্ড:—

২০১৮ সালে মুজফ্‌ফরপুরে ‘সেবা সংকল্প এবং বিকাশ সমিতি’ নামে একটি এনজিও পরিচালিত হোমে থাকা কিশোরীদের লাগাতার যৌণ নিপীড়ন, ধর্ষণের ঘটনা উঠে আসে। তদন্তে প্রমাণিত হয়, ওই হোমে থাকা ৪২ জনের মধ্যে ৩৪ জনই ধর্ষণ ও নিপীড়নের শিকার। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনায় দেশ জুড়ে বিতর্কের মুখে পড়েন মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার।

চাপের মুখে সিবিআই তদন্ত শুরু করার নির্দেশ দেন তিনি। এর মাঝে প্রশ্ন ওঠে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী মঞ্জু বর্মার ভূমিকা নিয়ে। অভিযোগ, মুজফ্‌ফরপুর হোমে দূর্নীতি ও যৌণ নিপিড়ন-ধর্ষণ ঘটনার সঙ্গে মন্ত্রীর স্বামী ঘনিষ্ঠ। বিতর্ক এড়াতে মন্ত্রীকেই বহিষ্কার করেন নীতীশ কুমার।

বিতর্কিত মঞ্জু বর্মা কেন টিকিট পেলেন, এই প্রশ্নে দল ও বিরোধীদের প্রশ্নবাণে জর্জরিত হতে শুরু করেছেন নীতীশকুমার। জেডিইউ প্রার্থী হিসেবে মঞ্জু বর্মা টিকিট পেয়েছেন চেরিয়া বিধানসভা কেন্দ্রে।

প্রথম দফা নির্বাচনে জেডিইউ যে ১১৫ জনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করেছে, তাতে মুজফ্‌ফরপুর হোম কাণ্ডে সিবিআই নজরে থাকা মঞ্জু বর্মার নাম থাকায় শুরু হয়েছে চাঞ্চল্য।

বিরোধী আরজেডি নেতৃত্বের মহাজোট থেকে কটাক্ষ করা হয়, মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার যে স্বচ্ছ প্রশাসনের দাবি করেছেন তা মঞ্জু বর্মাকে টিকিট দেওয়া থেকেই স্পষ্ট। নয়া দিল্লিতে কংগ্রেসের সর্বভারতীয় মহিলা নেত্রী প্রাক্তন সাংসদ সুস্মিতা দেব তীব্র কটাক্ষ করেছেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী মোদী বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও নীতির কথা বলেন, আর তাঁর জোট শরিক জেডিইউ এমন একজনকে টিকিট দিয়েছে যার বিরুদ্ধে মুজফ্‌ফরপুর হোম কাণ্ডে তদন্ত চলছে। মোদী এর জবাব দিন।

এদিকে টিকিট পাওয়ার পর মঞ্জু বর্মাকে ঘিরে বিতর্কের পরেও নীরব নীতীশ কুমার। নির্বাচনে এই বিতর্ক বড় আকার নিচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।